প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সন্ত্রাসবাদ বিরোধী যুদ্ধে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যসহ ২৭ হাজার নাগরিক হারালো পাকিস্তান

ওমর শাহ : সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ পাকিস্তানের জন্য একটি আতঙ্কের নাম। দফায় দফায় স্কুল, কলেজ, গির্জা ও মসজিদে সন্ত্রাসী হামলার কারণে বিশ্বব্যাপী ভাবমূর্তি হারাতে বসেছে দেশটি। অপরদিকে যুক্তরাষ্ট্রও প্রতিনিয়ত পাকিস্তানের ওপর চাপ সৃষ্টি করে আসছে। পাকিস্তান সন্ত্রাসবাদের আশ্রয়দাতা বলেও অভিযুগ যুক্তরাষ্ট্রের। সম্প্রতি মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও ভাইস প্রেসিডেন্টের চাপ সৃষ্টিতে আবারও নেড়েচেড়ে বসেছে পাকিস্তান। মার্কিন নেতাদের অভিযোগে উদ্বেগ প্রকাশ করে পাকিস্তানের দাবি, সন্ত্রাসবাদবিরোধী লড়াইয়ে পাকিস্তান এখন পর্যন্ত ১৩টি বড় বড় সেনা অপারেশন চালিয়েছে। হারিয়েছে ৬ হাজার আটশ নিরাপত্তা সদস্য ও ২১ হাজার সাধারণ নাগরিক। তবুও পাকিস্তানের এ ত্যাগকে অস্বীকার করা পাকিস্তানের জন্য বড়ই দুঃখের। এমনটাই দাবি করলেন যুক্তরাষ্ট্রে নিযুক্ত পাকিস্তানের রাষ্ট্রদূত এজাজ চৌধুরী। খবর : জিও নিউজ উর্দু

ওয়াশিংটনে পেশোয়ারের সেনা স্কুলে জঙ্গি হামলায় নিহতদের স্মরণে আয়োজিত অনুষ্ঠানে এজাজ চৌধুরী বলেন, সন্ত্রাসবাদ বিরোধী যুদ্ধ পাকিস্তানের ছিল না বরং পাকিস্তানের ওপর চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে। যার ফলে এটা পাকিস্তানের যুদ্ধে রূপ নিয়েছে। সন্ত্রাসবাদ বিরোধী যুদ্ধ ওই সময় পর্যন্ত সফল হবে না যতক্ষণ সন্ত্রাসবাদের মানসিকতা পরিবর্তন না হবে। সন্ত্রাসবাদ পাকিস্তান ও যুক্তরাষ্ট্রের শত্রু। এর বিরুদ্ধে আমাদের একসঙ্গেই লড়াই চালিয়ে যেতে হবে।
তিনি আরও বলেন, আফগানিস্তানে স্থিতিশীলতা আনা পাকিস্তানের দায়িত্বে নয়। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্র ও পাকিস্তানের স্বার্থে দুদেশের মাঝে অংশীদারিত্ব অব্যাহত রাখতে হবে।

উল্লেখ্য, গত সপ্তাহে মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা কৌশল প্রকাশ করে ডোনাল্ড ট্রাম্প। এ সময় তিনি পাকিস্তানকে সন্ত্রাসবাদ বিষয়ে ‘সিদ্ধান্তমূলক ভূমিকা’ রাখার তাগিদ দেন। এর কয়েকদিন পর মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্টও অঘোষিত আফগানিস্তান সফরে পাকিস্তানকে সর্তকবার্তা পাঠান। সূত্র: জিও নিউজ উর্দু

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত