প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

পিয়াজের ঝাঁজ কমছে

ডেস্ক রিপোর্ট : অবশেষে পিয়াজের ঝাঁজ কমতে শুরু করেছে। তবে এখনো ১০০ টাকার উপরে কেজি রয়েছে। এদিকে রাজধানীর বাজারে নতুন পিয়াজের সরবরাহও বেড়েছে। ফলে ক্রেতাদের মাঝে কিছুটা হলেও স্বস্তি ফিরতে শুরু করেছে। নতুন পিয়াজ বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজি ৮৫-৯০ টাকা। আর পুরাতন পিয়াজ কেজিতে ১০-১৫ টাকা কমে বিক্রি হচ্ছে ১০০-১২০ টাকায়।

এদিকে শীতের সবজির দাম কমলেও বেড়েছে ব্রয়লার মুরগির দাম। আর গত সপ্তাহের মতোই ঊর্ধ্বমূল্যে বিক্রি হচ্ছে চাল। রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে এসব তথ্য জানা গেছে। বাজারে কেজিপ্রতি দেশি পিয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১০০-১২০ টাকা দরে। গত সপ্তাহে বিক্রি হয়েছিল ১১০-১৩০ টাকা। সে হিসেবে এক সপ্তাহের ব্যবধানে প্রতি কেজি পিয়াজের দাম কমেছে ১০-১৫ টাকা। আর আমদানি করা পিয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৭০-৮৫ টাকা কেজি। গত সপ্তাহে বিক্রি হয়েছিল ৭৫-৮৫ টাকা। সে হিসেবে এক সপ্তাহের ব্যবধানে প্রতি কেজি পিয়াজের দাম কমেছে ৫ টাকা।

পিয়াজ বিক্রেতা আরিফ বলেন, বাজারে নতুন পিয়াজ আসতে শুরু করেছে। তাই কিছুটা দাম কমতে শুরু করেছে। তবে ভারতীয় পিয়াজ এখনো বেশি দামে আমদানি করতে হচ্ছে। তাই বেশি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে। ক্রেতারা বলেন, দাম কমলেও এই কমতি দর বাজার স্বাভাবিক করতে পারেনি। ২৫-৩০ টাকা কেজি পিয়াজের দাম না আসা পর্যন্ত দাম স্বাভাবিক বলা যাবে না। শুরুর দিকে শীতের অন্যতম সবজি বাঁধাকপি ও ফুলকপি প্রতিটি ৩৫-৪০ টাকা দরে বিক্রি হলেও রাজধানীর খুচরা বাজারে এখন ভালোমানের এ কপি বিক্রি হচ্ছে ২০-২৫ টাকায়।

আবার কিছুটা ছোট কপি বিক্রি হচ্ছে ১০-১৫ টাকায়। মান ভেদে শিম বিক্রি হচ্ছে ২০-৪০ টাকা কেজি। নতুন আলু প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ১৫ থেকে ২০ টাকায়। আর কোল্ড স্টোরেজের আলু এখন বিক্রি হচ্ছে ১০ টাকায়। এ ছাড়া করলা ও ঢেঁড়স ৩০-৪০ টাকা, বেগুন ২৪-৩০ টাকা আর ভালোমানের প্রতি পিস লাউয়ের দাম ৩০-৪০ টাকা। সবজি বিক্রেতা রবিউল বলেন, দেড়শ’ টাকার টমেটো এখন ৬০ টাকা। শিম, মুলা, ফুলকপি সব সবজির দামই কমে অর্ধেক হয়েছে। তবে শীতের সবজির সরবরাহ যত বাড়বে দাম তত কমবে বলে জানান এ সবজি বিক্রতা। এ ছাড়াও প্রতি কেজি কাঁচামরিচ ৬০-৮০ টাকা, পাকা টমেটো ৬০-৮০ টাকা আর কাঁচা টমেটো ২০-২৪ টাকা। গাজর ৪০ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে। পালংশাক, সরিষাশাক, মুলাশাক, লাউশাক এবং লালশাক প্রতি আঁটি বিক্রি হচ্ছে ১০ থেকে ১৫ টাকায়।

এদিকে ব্রয়লার মুরগির দাম বেড়েছে। প্রতিকেজি ব্রয়লার বিক্রি হচ্ছে ১৩০-১৩৫ টাকায়। গত সপ্তাহে বিক্রি হয়েছিল ১২৫-১৩০ টাকায়। সে হিসেবে এক সপ্তাহে মুরগির দাম বেড়েছে ৫ টাকা। গরুর মাংসের দাম ৪৮০-৫০০ টাকা, আর খাসির মাংসের কেজি ৭২০ টাকা। অন্যদিকে সর্বশেষ খুচরা বাজারের তথ্য অনুযায়ী, কেজিপ্রতি নাজিরশাইল চাল বিক্রি হচ্ছে ৭০ টাকা, মিনিকেট ৬৫ টাকা, বিআর-২৮ ৫৫ টাকা, পারিজা কেজিপ্রতি বিক্রি হচ্ছে ৪৬ টাকা। চালের দাম বাড়তি সম্পর্কে বিক্রেতারা বলেন, মাঝখানে চালের দাম কিছুটা কমতে শুরু করেছিল। কিন্তু এখন মোকামের অবস্থা খারাপ হওয়ায় চালের দাম আবারো বাড়ছে। কাওরানবাজারে আসা মনির বলেন বাজারে চাল, পিয়াজ ও সবজি কোনোটার দামই স্বাভাবিক নয়। বাজার দর দিন দিন ক্রেতাদের নাগালের বাইরে চলে যাচ্ছে। মানবজমিন

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত