প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

দুই তৃতীয়াংশ ফিলিস্তিনি শিশু ইসরায়েলি নির্যাতনের শিকার

রাশিদ রিয়াজ : ইসরায়েলে আটক ফিলিস্তিনি শিশুদের ওপর নির্যাতনের মাত্রা বৃদ্ধির রিপোর্ট দিয়ে ইউনিসেফ বলেছে এসব শিশুদের আইন সহায়তার সুযোগ দেওয়া অপরিহার্য হয়ে পড়েছে। এবছর ইসরায়েলের সেনাদের হাতে আটক ৭০ জন শিশুর মধ্যে দুই তৃতীয়াংশই অভিযোগ করেছে আটকের পর তাদের ওপর শারীরিক নির্যাতন করা হয়েছে। এসব শিশুদের ইসরায়েলি সেনারা চড়, লাথি, ঘুষি মেরেছে। বেকায়দায় ও বেদনাদায়কভাবে বসে থাকতে বাধ্য করেছে। এসব তথ্য বেরিয়ে এসেছে মিলিটারি কোর্ট ওয়াচ নামে আইনজীবী ও সামাজিক কর্মীদের এক পর্যবেক্ষণ প্রতিষ্ঠানের গত অক্টোবরের প্রতিবেদনে। হারেৎজ

এবছর এসব আটক ৭০ ফিলিস্তিনি শিশু ও কিশোরের বয়স ১২ থেকে ১৭ বছর। ইসরায়েল প্রিজন সার্ভিসের তথ্য অনুসারে গত জুন পর্যন্ত ৩১৮ জন ফিলিস্তিনি শিশুকে আটক করা হয়েছে। মিলিটারি কোর্ট ওয়াচের জরিপে আটক ৬৪ ভাগ শিশুকেই নির্যাতনের তথ্য পাওয়া গেছে। ২০১৩ সাল থেকে চলতি বছর পর্যন্ত আটক ৫৪০ জন শিশুর মধ্যে ১৪ ভাগের বয়স মাত্র ৫ বছর।

২০১৩ সালে ইউনিসেফের এক প্রতিবেদনে বলা হয় ইসরায়েলি সেনাদের হাতে আটক ফিলিস্তিন শিশুদের এমন এক আটক ব্যবস্থায় নেওয়া হয় যেখানে তারা প্রাতিষ্ঠানিকভাবেই নির্যাতনের শিকার হয় এবং আইনী প্রক্রিয়ায় গ্রেফতারের মুহূর্ত থেকেই শিশুকে অপরাধী হিসেবে গণ্য করা হয়ে থাকে। রাতের বেলা বাড়ি ঘেরাও দিয়ে আটক করা, হাত বাঁধা, চোখ বাঁধা, আইনী সহায়তার সুযোগ না দেওয়া, অভিভাবকদের হয়রানি সহ বিভিন্ন ধরনের নির্যাতনের তথ্য এ প্রতিবেদনে উঠে এসেছে।

ইউনিসেফের ওই প্রতিবেদন প্রকাশের পর ইসরায়েলি কর্মকর্তারা পরিস্থিতি উন্নয়নের আশ্বাস দেন। গ্রেফতারের সঠিক নিয়ম অনুসরনের নির্দেশ দেওয়া হয় ইসরায়েলি সেনাদের। ইসরায়েলি সেনাবাহিনী পরের বছর ফিলিস্তিনি শিশুদের আটক করার ক্ষেত্রে কিছু নির্দেশনা দেয়। এতে দেখা যায় আটক শিশুদের ২১ ভাগকে এবছর আইনী সহায়তার সুযোগ দেওয়া হয়েছে।

কিন্তু শিশুদের আটকের পর ইসরায়েলি সেনাদের নির্যাতনের ব্যাপারে কোনো হেরফের হয়নি। ৫১ ভাগ শিশু বলছে, সেনারা ধরা মাত্রই চড়, থাপ্পড় সহ নানা ধরনের শারীরিক নির্যাতন করতে থাকে। ৯৩ ভাগ শিশু জানিয়েছে তাদের হাত বেঁধে নির্যাতন করা হয়। ৭৯ ভাগ বলছে হিব্রু ভাষায় লিখিত স্বীকারোক্তিতে জোর করে তাদের স্বাক্ষর নেওয়া হয় যা তারা বুঝতেই পারে না।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত