প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

৭ জানুয়ারি বসছে সংসদের শীতকালীন অধিবেশন

আসাদুজ্জামান সম্রাট : দশম জাতীয় সংসদের ১৯তম এবং ২০১৮ সালের শীতকালীণ অধিবেশন বসছে আগামী ৭ জানুয়ারি। বর্ষশুরুর অধিবেশন হওয়ায় মহমান্য রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদ এ অধিবেশনেই তার বর্ষশুরুর ভাষণ দেবেন। তার ভাষণের উপর দীর্ঘ আলোচনা অনুষ্ঠিত হবে।

বুধবার মহামান্য রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বাংলাদেশের সংবিধানের ৭২ অনুচ্ছেদের (১) দফায় প্রদত্ত ক্ষমতাবলে এ অধিবেশন আহবান করেছেন। সংসদের শেষ বছর হওয়ায় বর্ষশুরুর এ অধিবেশন নানা কারণে গুরুত্বপূর্ণ। রাষ্ট্রপতির ভাষণে সামগ্রিক উন্নয়নচিত্র যেমন ফুটে উঠবে তেমনি আগামীর দিক নির্দেশনাও থাকবে।
মন্ত্রিসভার বৈঠকে ইতিমধ্যেই রাষ্ট্রপতির ভাষণ অনুমোদন করা হয়েছে। সরকারের বিভিন্ন অর্জনগুলো ভাষণে প্রাধান্য পাবে। রাষ্ট্রপতির এ ভাষণের উপর আনীত ধন্যবাদ প্রস্তাবের উপর সাধারণ আলোচনা অনুষ্ঠিত হবে। যাতে সংসদ সদস্য এ ভাষণের চুলচেরা বিশ্লেষণ ছাড়াও নিজ নিজ নির্বাচনী এলাকার উন্নয়নচিত্র তুলে ধরবেন। একই সঙ্গে প্রয়োজনীয় উন্নয়নের বিষয়েও সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করবেন।

এ অধিবেশনে প্রয়াত মন্ত্রী ছায়েদুল হক ও সংসদ সদস্য গোলাম মোস্তফার মৃত্যুতে শোক প্রস্তাব উত্থাপন ও আলোচনা অনুষ্ঠিত হবে। সাধারণত: বর্তমান সংসদের কোন সংসদ সদস্যের মৃত্যু হলে সংসদের পরবর্তী অধিবেশনের প্রথম দিনে শোক প্রস্তাব গ্রহণ শেষে তাঁর সম্মানে সংসদ মূলতবি করার প্রথা রয়েছে। বর্ষশুরুর ভাষণ হওয়ায় রাষ্ট্রপতির ভাষণ প্রদানের বিধান রয়েছে। এ নিয়ে সৃষ্ট জটিলতার সমাধানও এনেছে জাতীয় সংসদ সচিবালয়।

সংসদ সচিবালয় জানিয়েছে, সংসদে শোক প্রস্তাব উত্থাপন এবং এর উপর আলোচনা শেষে সংসদের অধিবেশন ১ ঘণ্টার জন্য মুলতবি করা হবে। মুলতবির পর সংসদের অধিবেশন পূনরায় শুরু হলে রাষ্ট্রপতি তাঁর বর্ষশুরুর ভাষণ দেবেন। রাষ্ট্রপতির ভাষনের পর অধিবেশন মুলতবি হয়ে যাবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ