প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

‘নোটিশ প্রত্যাহার না করলে খালেদা জিয়ার ‍বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা’(ভিডিও )

সারোয়ার জাহান : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ৩০ দিনের মধ্যে ক্ষমা চাইতে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার পাঠানো উকিল নোটিশ প্রত্যাহার না করা হলে বিএনপির ‍বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছে আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক ড.হাছান মাহমুদ।

বুধবার বিকাল সাড়ে পাঁচটার দিকে বেগম জিয়ার উকিল নোটিশের জবাবে আওয়ামী লীগের ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে এই সংবাদ সম্মেলনে আয়োজন করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী এবং দলের প্রচার ও প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক ও দলের অন্যতম মুখপাত্র ড. হাছান মাহমুদ বক্তব্য রাখেন।

আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক হাছান মাহমুদ বলেন, ‘যে সময় বিএনপির দুর্নীতি দেশে-বিদেশে ফলাও করে প্রচার হচ্ছে, দুর্নীতির মামলার বিএনপি নেতা খালেদা জিয়া ও তার ছেলেদের শুনানি চলছে, ঠিক এই সময়ে জনগণের দৃষ্টি ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতেই তারা আইনি নোটিশ পাঠিয়েছে। তারা শাক দিয়ে মাছ ঢাকার চেষ্টা করছে। বিএনপিকে আমরা বলতে চাই, অবিলম্বে এই আইনি নোটিশ প্রত্যাহার করতে হবে। তা না হলে, তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

হাছান মাহমুদ আরও বলেন, ১২টি দেশে খালেদা জিয়া ও তার পরিবারের এক হাজার দুইশ কোটি মার্কিন ডলার পাচারের অভিযোগ এসেছে। এসময় তিনি ২০০১ সাল পরবর্তী বিভিন্ন সময়ে খালেদা জিয়া ও তার পরিবারের ‘দুর্নীতি ও অর্থ পাচারে’র বিভিন্ন তথ্য তুলে ধরেন। খালেদা জিয়া জরিমানা দিয়ে কালো টাকা সাদা করেছেন বলেও তিনি উল্লেখ করেন। এসময় দুর্নীতি ও অর্থপাচারের জন্য খালেদা জিয়াকে জনগণের ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকরা প্রশ্ন করেন, মধ্যপ্রাচ্যের কয়েকটি দেশে খালেদা জিয়া ও তার পরিবারের সদস্যদের অর্থ বিনিয়োগের যে অভিযোগ উঠেছে, এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের কাছে কোনও তথ্যপ্রমাণ আছে কিনা। এ প্রশ্নের জবাবে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘আমাদের কাছে অবশ্যই তথ্যপ্রমাণ আছে। তাছাড়া বিভিন্ন অনলাইনে এই বিষয়টি প্রকাশিত হয়েছে।’

এসময় মতিয়া চৌধুরী বলেন, ‘আওয়ামী লীগ তথ্যপ্রমাণ ছাড়া ভিত্তিহীন কোনও তথ্য প্রচার করে না। আওয়ামী লীগ কোনোদিন কোনও বানোয়াট কথা বলে না, ভিত্তিহীন তথ্য দেয় না।’

অপর এক প্রশ্নের জবাবে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘উকিল নোটিশ এখনও আমাদের কাছে আসেনি। গণমাধ্যম থেকে আমরা নোটিশের বিষয়টি জেনেছি। নোটিশ পেলে এ বিষয়ে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী আরও বলেন, বেগম খালেদা জিয়ার আইনি নোটিস আইনের মাধ্যমে মোকাবেলা করা হবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা খালেদা জিয়ার সম্পদের তথ্য বিভিন্ন সূত্রের মাধ্যমে জেনে তিনি বলেছেন।

সংবাদ সম্মেলনে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, সৌদি আরবে জিয়া পরিবারের সম্পদ নিয়ে দেওয়া বক্তব্যের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে উকিল নোটিস পাঠিয়েছেন বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।

গতকাল মঙ্গলবার এই নোটিশ পাঠানো হয় বলে জানিয়েছেন বিএনপির চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ের গণমাধ্যম শাখার কর্মকর্তা শায়রুল কবীর খান।

এ ছাড়া বুধবার সকালে রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনেও এই তথ্য জানান বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি জানান, এই উকিল নোটিশের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীকে তার বক্তব্য প্রত্যাহারের করতে বলা হয়েছে।

মির্জা ফখরুল বলেন, বিএনপির চেয়ারপারসের আইনজীবী মাহবুব উদ্দিন খোকন গতকাল ডাকযোগে প্রধানমন্ত্রী বরাবর এই উকিল নোটিস পাঠান। যেখানে আগামী ৩০ দিনের মধ্যে ওই বক্তব্যের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিঃশর্ত ক্ষমা চাইতে ও তা সংবাদ মাধ্যমে প্রচার করতে বলা হয়েছে।

এর আগে গত ৭ ডিসেম্বর গণভবনে কম্বোডিয়া সফরের ওপর সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কয়েকটি আন্তর্বাতিক গণমাধ্যমের বরাত দিয়ে জানান, সৌদি আরবে জিয়া পরিবারের বিপুল সম্পদ রয়েছে। তবে এ নিয়ে দেশের বেশিরভাগ সংবাদ মাধ্যম খবর প্রকাশ না করায় তা নিয়ে অসন্তোষও প্রকাশ করেন তিনি। সাংবাদিকরা বিনা পয়সায় শপিংয়ের সুযোগ পেয়ে এই খবর চেপে গেছেন কি না তাও জানতে চান প্রধানমন্ত্রী।

এরপরই বিষয়টি নিয়ে আলোচনা শুরু হয়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত