প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সেনাবাহিনীকে সম্পৃক্ত করে নির্বাচন সম্পন্ন করতে হবে

মে. জে. (অব.) মুহম্মদ সৈয়দ ইবরাহিম বীরপ্রতীক : বাংলাদেশ সেনাবাহিনী গত ৪৬ বছর যাবত দেশ গড়ার কাজে নিয়োজিত আছে। অবশ্য উল্লেখযোগ্য যে, ৪৬ বছর যাবত বিভিন্ন সরকার সেনাবাহিনীকে দেশ গড়ার কাজে নিয়োজিত রেখেছে। তার জন্য সরকারগুলোকে অভিনন্দন জানাব। তার মধ্যে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সকল সদস্যদেরকে অভিনন্দন জানাচ্ছি। আজকের রাজনৈতিক কর্মী, সেনাবাহিনীর কর্মী, অবসরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল, বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মে. জে. (অব.) সৈয়দ মুহম্মদ ইবরাহিম বীরপ্রতিক তার জীবনে কর্মজীবি হিসাবে কাটিয়েছেন সেনাবাহিনীর একজন সদস্য হিসাবে। সে সময় তিনি নিজেও দেশ গড়ার কাজেও নিয়োজিত ছিলেন। সেনাবাহিনী বর্তমানে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় বিভিন্ন প্রকার কাজে নিয়োজিত রয়েছে, এটা আমাদের দেশের জনগন দেখছে।

শুধু দেশের ভিতরে কাজ করছে না তারা, দেশের বাইরেও কাজ করছেন। সেনাবাহিনী দেশের জন্য সম্মান বয়ে আনছে। তারপর দেশে ঝড়তুফান, সাইক্লোন, ভুমিকম্প ইত্যাদিতে উদ্ধার কাজে সেনাবাহিনীকে মোতায়েন করা হয়। বাংলাদেশকে টাচ করে বা সম্পৃক্ত করে যেমন পার্লামেন্ট নির্বাচনের সময় সেনাবাহিনী মোতায়েন করা হত। কিন্তু ২০১৩ সালে সেনাবাহিনীকে না জানিয়ে কারো আহবান ছাড়াই বর্তমান সেনাবাহিনীকে বাদ দিয়েছে। যেমন প্রধান মন্ত্রী বলেছেন সেনাবাহিনীর কাজে সীমাবদ্ব থাকবে না, তারা দেশ গড়ার কাজে নিয়োজিত থাকবে।

এটা যদি হয়, তাহলে সুষ্ঠু নির্বাচনে প্রয়োজন সেনাবাহিনী। যদি সুষ্ঠু নির্বাচন করতে হয় তাহলে সরকারি মাস্তান, দুর্বৃত্ত এবং রাজনৈতিক প্রভাব থেকে মুক্ত করার জন্য একমাত্র উপায় সেনাবাহিনী মোতায়েন করা। পার্লামেন্ট নির্বাচন করার ১০ দিন আগে সারা বাংলাদেশের শহরে শহরে, গ্রামে গ্রামে সব জায়গায় সেনাবাহিনী টহল দিবে। তারা সবাইকে বলবে, তোমরা নিজের ভোট নিজে দিতে পারবে, সেখানে অন্য কেউ মাস্তানি করবে না, ভোট কেন্দ্রে কোন গোলাগুলি হবে না। আমাদের সেনাবাহিনীকে সম্পৃক্ত করে নির্বাচন সম্পন্ন করতে হবে।

পরিচিতি : বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান
মতামত গ্রহণ : রাশিদুল ইসলাম মাহিন
সম্পাদনা : মোহাম্মদ আবদুল অদুদ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত