প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

রয়টার্সের দুই সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা করছে মিয়ানমার

মাছুম বিল্লাহ :  ঔপনিবেশিক আমলের দাপ্তরিক গোপনীয়তা আইনে এ মামলা করার অনুমতি এরই মধ্যে দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট তিন কিয়াও। পুলিশকে মামলার প্রক্রিয়া শুরুরও নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। রয়টার্সের খবর।

দুই সাংবাদিকের বিরুদ্ধে পুলিশের কাছ থেকে অবৈধভাবে গোপন নথি সংগ্রহের অভিযোগ আছে বলে জানিয়েছেন এক ঊর্ধ্বতন সরকারি কর্মকর্তা।

মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সু চির মুখপাত্র জ হাতয় জানান, প্রেসিডেন্টের কার্যালয়ের অবগতিতেই আটক সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছে।

“স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় থেকে প্রেসিডেন্টের কার্যালয়ে মামলা করার অনুমতি চাওয়া হয়েছে এবং কার্যলয় অনুমতি দিয়েছে” বলেও জানান তিনি।

গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় রয়টার্সের দুই সাংবাদিক কো ওয়া লোন (৩১) এবং উ কিয়াও সোয়ে ও (২৭) কে গ্রেপ্তার করা হয়।

ইয়াঙ্গনে পুলিশ কর্মকর্তাদের সঙ্গে রাতের খাবারের দাওয়াত দিয়ে ওই দুই সাংবাদিককে ডেকে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। পরে তাদের আর খোঁজ মেলেনি, মোবাইল ফোনও বন্ধ পাওয়া যায়।

পরদিন মিয়ানমার সরকারের এক মুখপাত্র তাদের গ্রেপ্তার হওয়ার খবর দেন। ওই সময় তথ্য মন্ত্রণালয় থেকে বলা হয়েছিল, ওয়া লোন এবং কায়াও সোয়ে ‘বিদেশি সংবাদমাধ্যমকে দেওয়ার জন্য ইচ্ছা করে অবৈধভাবে তথ্য সংগ্রহ করছিলেন’।

২০১৬ সালে রয়টার্সে যোগ দেওয়া সাংবাদিক ওয়া লোন মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গা মুসলিমদের সংকটসহ আরও বিভিন্ন ধরনের সংবাদ প্রতিবেদন তৈরি করেছেন। আর কিয়াও সোয়ে গত সেপ্টেম্বর থেকে রয়টার্সের প্রতিবেদক হিসাবে কাজ করছেন।

তাদেরকে গ্রেপ্তারের ঘটনায় জাতিসংঘ, যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, যুক্তরাজ্য এবং বাংলাদেশসহ বিভিন্ন দেশ ও মানবাধিকার সংস্থা তীব্র নিন্দা জানিয়েছে।

মিয়ানমার দিন দিনই সংবাদপত্রের স্বাধীনতার ওপর খড়গহস্ত হচ্ছে। বিশেষ করে প্রভাবশালী সামরিক বাহিনী নিয়ে কোনও সংবাদ, প্রতিবেদনের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নিচ্ছে সরকার।

রয়টার্সের প্রেসিডেন্ট ও প্রধান সম্পাদক বুধবার এক বিবৃতিতে ‘সংবাদ মাধ্যমের স্বাধীনতার উপর এমন নির্লজ্জ আক্রমণে’ চরম ক্ষোভ প্রকাশ করে দ্রুত দুই সাংবাদিকের মুক্তির আহ্বান জানিয়েছেন।

দাপ্তরিক গোপনীয়তা আইনের (অফিসিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্ট-১৯২৩) অধীনে সর্বোচ্চ শাস্তি ১৪ বছরের কারাদণ্ড।

বিচার প্রক্রিয়ায় সাংবাদিকদের আইনি অধিকারের সম্মান দেওয়া হবে বলে নিশ্চিত করেছেন সু চির মুখপাত্র হাতয়। তিনি বলেন, “আপনাদের সাংবাদিকরা যথাযথ আইনি সুরক্ষা পাবেন। আমি বলছি, মিয়ানমার সরকার আইন অনুযায়ী সবকিছু করার নিশ্চয়তা দিচ্ছে।”

দুই সাংবাদিকের সঙ্গে দুই পুলিশ কর্মকর্তাও গ্রেপ্তার হয়েছেন।

তারা হলেন, পুলিশ ক্যাপ্টেন মোয়ে ইয়ান নাং এবং পুলিশ সার্জেন্ট খিন মাউং লিন। তাদের বিরুদ্ধেও মামলা করা হবে কিনা সে বিষয়ে কিছু জানা যায়নি।

গ্রেপ্তারের পর দুই সাংবাদিককে পুলিশ স্টেশন থেকে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যাওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে রয়টার্স। পরিবার বা সহকর্মী এমনকি আইনজীবীদের সঙ্গেও তাদের দেখা করতে দেওয়া হচ্ছে না।-সাউথ এশিয়ান মনিটর।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত