প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সমকামী বিয়ের কেক নিয়ে মার্কিন সুপ্রিমকোর্টে লঙ্কাকাণ্ড

লিহান লিমা: যুক্তরাষ্ট্রের কলারাডোর কেক শিল্পী জ্যাক ফিলিপ এক গে দম্পতির বিয়ের কেক বানাতে অস্বীকৃতি জানিয়েছিলেন। এরপর ওই দম্পতি তার বিরুদ্ধে অধিকারের মামলা ঠুকে দেয়। এই ঘটনা রাজ্যের আদালত ছাড়িয়ে সুপ্রিম কোর্ট পর্যন্ত গড়ায়। এখন যুক্তরাষ্ট্রের সর্বোচ্চ আদালতের বিচারকরাও এই বিষয়টি নিয়ে দ্বিধা-দ্বন্দ্বে পড়ে গিয়েছেন। দু’দলে বিভক্ত হয়ে পড়েছেন বিচারকরা। অন্যদিকে হাইকোর্টের বাহিরেও দু’দলের সমর্থকরা যার যার পক্ষে আন্দোলন করছে। এ যেন মশা মারতে কামান দাগানোর অবস্থা।

কেক মেকারের পক্ষে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের বাক-স্বাধীনতা, ধর্ম বিশ্বাস ও শৈল্পিক স্বাধীনতার আইন, আবার অন্যদিকে গে দম্পতির পক্ষে রয়েছে বৈষম্য বিরোধী আইন ও দু’ বছর আগেই মার্কিন হাইকোর্টে সমকামী বিয়েকে স্বীকৃতি দেয়ার যুগান্তকারী আইন।
গে দম্পতি ডেভ মুলিনস ও শার্লি ক্যার্গি বেকারির মালিক জ্যাকের বিরুদ্ধে ২০১২ সালের জুলাইতে এই মামলা করেছিলেন। মুলিনস ও ক্যার্গি এএফপিকে বলেন, ফিলিপ কেক বানাতে অস্বীকৃতি জানানোর পর তারা মানসিক ভাবে পুরোপুরি ভেঙ্গে পড়েছিলেন। অন্যদিকে ফিলিপ বলেন, ‘আমি নিজের বিশ্বাসের সঙ্গে সাংঘর্ষিক কোন অনুষ্ঠানের জন্য কিছু তৈরি করি না। আমি হ্যালোইন, সমকামী, আমেরিকার আদর্শের বিপরীত বা মানুষকে তুচ্ছ করার জন্য কোন কেক তৈরির অর্ডার নেই না।’
উদারপন্থী বিচারকরা বলেন, ‘ফিলিপের কেক শপের মালিক হিসেবে লিঙ্গ, বর্ণ নির্বিশেষে সব ক্রেতাকে একই ভাবে সেবা দেয়া উচিত।’ অন্যদিকে রক্ষণশীল আইনজীবিরা বলেন, ‘ফিলিপ একজন কেক আর্টিস্ট। নিজের ধর্মীয় বিশ্বাসের সঙ্গে সাংঘর্ষিক কোন কিছু বানাতে তাকে বাধ্য করা যায় না।’
বিচারক অ্যান্থনি কেনেডি ফিলিপের স্বাধীনতার ওপর জোরারোপ করেন। তবে আদালতের লিবারেল সদস্য বিচারক সোনিয়া সতোমার বলেন, ‘প্রথম কথা হল, যে কোন খাদ্যবস্তুই খাবারের জন্য। আবার ফিলিপের আইনজীবি বলেন, কিন্তু বিয়ের কেক শুধু একটি খাবারই নয় এটি একটি বার্তা বহন করে।’
এদিকে ট্রাম্প প্রশাসনের আইনজীবি নোল ফ্রান্সিসকো বলেন, ‘ফিলিপ বিশ্বাস করে বিয়ে কেবল ছেলেও মেয়ের মধ্যেই হয়। আপনি নিশ্চয়ই একজন আফ্রো-আমেরিকানকে কট্টর শ্বেতাঙ্গ জাতীয়তাবাদী ক্লু ক্লুক্স ক্ল্যান গোষ্ঠিকে সেবা দিতে বলতে জোর করতে পারেন না।’
সুপ্রিম কোর্টের বাহিরে এসে ফিলিপ বলেন, সরকারের অবশ্যই যে কোন নাগরিককে তার ধর্মীয় বিশ্বাসের পরিপন্থী কোন কিছুতে জোর করা রোধ করতে হবে। তাকে সমকামী বিয়ের এমন একটি স্কেচ করতে বলা হয়েছিল যা তার ধর্ম বিশ্বাসকে আঘাত করে। অন্যদিকে গে দম্পতি ও অধিকার গোষ্ঠিগুলো সতর্ক বার্তা দিয়ে বলে, যদি ফিলিপ এই মামলায় জয় লাভ করে তবে অন্য ব্যবসায়ীরাও ধর্মীয় অবস্থান দেখিয়ে সমকামীদের সেবা দিতে অস্বীকৃতি জানাবে। তবে দিনশেষে বিচারকদের পরস্পর বিরোধী অবস্থানের মুখে ৯০ মিনিটের এই শুনানি অসমাপ্ত রেখেই শেষ হয়। এএফপি, নিউ ইয়র্ক টাইমস।

 

 

সর্বাধিক পঠিত