প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ভেনেজুয়েলায় দুর্নীতির দায়ে দুই উর্ধ্বতন কর্মকর্তা গ্রেফতার

তানভীর রিজভী : তেল শিল্পে দুর্নীতির দায়ে অভিযুক্ত দুই উর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে গ্রেফতার করেছে ভেনেজুয়েলার সরকার। আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম এপি নিউজ জানায়, বৃহস্পতিবার তেলমন্ত্রী ইউলোগিও দেল পিনো এবং রাষ্ট্রীয় তেল কোম্পানি পিডিভিএসএ’র প্রাক্তন সভাপতি নেস্টর মার্টিনেজকে তেল শিল্পে দুর্নীতি মামলার অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়।

অনেকেই মনে করছেন এই গ্রেফতারের ঘটনা মূলত সামনের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনকে সামনে রেখে বর্তমান প্রেসিডেন্ট মাদুরোর নিজ দলকে একীভূত করার একটি কৌশল ।

গ্রেফতারকৃতদের দুজনই মাদুরোর শীর্ষ সমালোচকদের অন্যতম। এজন্যেই এদের গ্রেফতারের ফলে সৃষ্টি হয়েছে এক ঘোলাটে পরিস্থিতি।

তবে কিছুদিন আগেই ভেনেজুয়েলার প্রধান বিচারপতি হিসেবে নিয়োগ পাওয়া তারেক উইলিয়াম সাব ভেনেজুয়েলার রাজধানী করাকাসে একটি সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘গ্রেফতারকৃত উভয়ই রাষ্ট্রীয় তহবিল, রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র এবং অর্থ পাচারের অভিযোগে অভিযুক্ত।’

তিনি আরও বলেন, ‘এই ঘটনা আমাদেরকে একটি অভিশাপ থেকে মুক্ত করেছে। তারা আমাদের এই বিশাল তেল শিল্পের যথোপযুক্ত ব্যবহার করেনি । দুর্নীতির টাকায় তারা প্রমোদতরী ও বিলাসবহুল বাড়ি কিনেছে । তাদের এই কর্মকান্ডে প্রচন্ডভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে বিশ্বের অন্যতম তেল রপ্তানিকারক দেশটি। ভুলে গেলে চলবেনা যে মুদ্রাস্ফীতির কারনে আমাদের দেশের একটি বৃহৎ অংশ অর্থকষ্টে ভুগছে, যাদের তিনবেলা খাদ্য জোগাড় করতেই অনেক দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।’

তিনি এও বলেন, ‘এটিকে একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা হিসেবে দেখা উচিত নয়, কারন গত ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ১৫ জন পিডিভিএসএ কর্মকর্তাকে তেল বিষয়ক দুর্নীতির অনুসন্ধানে আটক করা হয়েছে এবং গত আগস্ট থেকে মোট ৬৫ জনকে এই মামালায় গ্রেফতার করা হয়েছে। এদের মধ্যে পিডিভিএসএ এর হিউস্টন ভিত্তিক সহায়ক সংস্থার  ছয়জন কর্মকর্তারাও রয়েছেন। মজার ব্যাপার হলো, এদের মধ্যে আবার পাঁচজনের আমেরিকান পাসপোর্টও আছে।

সবশেষে সাব বলেন, ‘দুর্নীতির দায়ে শীর্ষ কর্মকর্তাদের এই গ্রেফতারের ঘটনা  জনগণের উপর ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে।’

এরপর গ্রেফতারকৃতদের অভিযোগ সম্পর্কে প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘মার্টিনেজ আমাদের জাতীয় স্বার্থের বিরুদ্ধে কাজ করেছেন । তিনি পিডিভিএসএ এর সভাপতি থাকা অবস্থায় হিউস্টন ভিত্তিক একটি কোম্পানির সাথে আলোচনার মাধ্যমে একটি ঋণ-অর্থায়ন চুক্তি করতে চেয়েছিলেন – যা রাষ্ট্রবিরোধী।’

অন্যদিকে সাব দেল পিনো সম্পর্কে বলেন , ‘রাশিয়া-ভেনিজুয়েলার যৌথ উদ্যোগে যে তেল উৎপাদন কেন্দ্র নির্মাণ করা হয়েছে তা থেকে দেল পিনো বিপুল পরিমাণ অর্থ আত্মসাৎ করেন, যা ২০১৫ থেকে ২০১৭ পর্যন্ত ৫০০ মিলিয়ন ডলার পরিমাণ রাজস্বের ঘাটতি ঘটায়। ইতোমধ্যে গ্রেফতারকৃত দুজনের পরিবর্তে সেনাবাহিনীর উচ্চ পর্যায়ের দুই কর্মকর্তাকে নিয়োগ দেয়া হয়েছে । তবে নিয়োগ প্রাপ্ত এই দুই ব্যাক্তির তেল শিল্প নিয়ে তেমন কোনো অভিজ্ঞতাই নেই । অথচ তাদের উপরই কিনা ভেনিজুয়েলার প্রধান বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের উৎসের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। সূত্র : রয়টার্স

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ