প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

টিন ব্যবসায়ী যখন এমবিবিএস ডাক্তার! ‍(ভিডিও)

জান্নাতুল ফেরদৌসী: টিন ব্যবসায়ী এখন এফসিপিএস চিকিৎসক। এখন তিনি ৭ রোগের বিশেষজ্ঞ। আছে ৬টি ডিগ্রি। ক্যান্সার থেকে শুরু করে জটিল রোগের ব্যবস্থাপত্র দেন তিনি। আছে এমবিবিএস সনদও, তবে মেডিকেল থেকে নয়, সার্টিফিকেটে প্রতিষ্ঠানে নাম আছে প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়। তিনি টাঙ্গাইলের চিকিৎসক ডা. সাইদুজ্জামান ওরফে শফিকুল ইসলাম। সূত্র- ইনডিপেন্ডেন্ট টিভি

দুটি হাসপাতালে বসে চিকিৎসা দেন ফিকুল ইসলাম। নামের পাশে এমবিবিএস, এফসিপিএস, এমসিএইচ, ডিএমইউ, এমপিএইচ থেকে শুরু আছে সব ধরনের ডিগ্রি। তার দাবি, হৃদরোগ, মেডিসিন, নাক-কান-গলা, মা-শিশু, চর্ম-যৌন ও সার্জারিতে বিশেষজ্ঞ তিনি।

নিয়মিত রোগী দেখছেন টাঙ্গাইলের আল শেফা ও এলেঙ্গার মদিনা ক্লিনিকে। কাশি ও ক্যান্সারের রোগী সেজে ডাক্তারের চেম্বারে গেলে ব্যবস্থাপত্র দেন তিনি। পরে সাংবাদিকের উপস্থিতি টের পেয়ে এক পর্যায়ে চেম্বার থেকে পালিয়ে যান শফিকুল। পালায় ক্লিনিক কর্তৃপক্ষও।

শফিকুলের দেয়া সনদ বলছে, তিনি মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পাস করেছেন প্রথম শ্রেণিতে। কিন্তু সনদ যাচাইয়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে গিয়ে জানা যায়, উচ্চ মাধ্যমিকে চার বিষয়ে ফেল করেছেন তিনি। শফিকুল এমবিবিএস ডিগ্রিও কিনেছেন অবৈধ প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় পিচ-ব্লেডি থেকে।

১৯৯৬/৯৭ সালের কথা। টাঙ্গাইলের কুতুবপুরে এই বাজারে টিনের দোকান করতেন শফিকুল। এরপর ঢাকা থেকে এমবিবিএস ডাক্তার হয়ে দেশে ফেরেন।

অভিযোগের জবাবে, শফিকুলের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানিয়েছে সিভিল সার্জন অফিস।পরে সংবাদ প্রচার বন্ধে ঘুষ দেয়ার চেষ্টা করেন শফিকুল। তার দাবি, সব সনদ বৈধ। পরে ক্যামেরা দেখে পালিয়ে যান এই ভুয়া চিকিৎসক।