প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

যানজটে নষ্ট হচ্ছে কর্মঘণ্টা: কারণ ও প্রতিকারের ব্যবস্থা

ইঞ্জিনিয়ার মোহাম্মদ নওশাদুল হক : ঢাকা শহরে যানজটের কারণে প্রতি কর্মদিবসে নষ্ট হচ্ছে লক্ষ কর্মঘন্টা। রোগীর মৃত্যু, চাকরিচ্যুতি, বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ লেন-দেন বা কর্মকান্ড ব্যাহত হচ্ছে প্রতিদিন। যানজটের একটা কারণ হচ্ছে, যত্রতত্র শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। যে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো ঢাকা শহরে গড়ে উঠেছে, কোনোটাই কিন্তু ম্যাপ অনুযায়ী হয়নি। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর লোকেশন অনুযায়ী একটি ম্যাপ থাকবে যে, রাস্তার পাশে হবে না, আবাসিক এলাকার ভেতরে হবে না, বাণিজ্যিক এলাকায় হবে না। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের একটা নির্দিষ্ট স্পেস থাকবে। কিছু স্কুল আছে, যাদের স্কুলের নিজস্ব মাঠ আছে। এগুলোর জন্য আবার যানজট হয় না।

 

কিছু স্কুল আছে এমন, বড় একটি রাস্তার মোড়ের মধ্যে একটি বিল্ডিংয়ে স্কুল খুলে রেখেছে। এখানে আবার বড়লোকদের সন্তানেরা পড়ে। তারা সবসময় গাড়ি নিয়ে আসে। তাদের গাড়িগুলো রাস্তার পাশে লাইনে পার্কিং করে রাখে। যার জন্য ঐ রাস্তায় যানজট লেগে থাকে। আবার কোনো স্কুলে নিজস্ব ট্রান্সপোর্ট নেই। স্কুলের নিজস্ব ট্রান্সপোর্ট থাকলে ছাত্র-ছাত্রীরাও নিরাপদ থাকত। একটি বাসে করে যেখানে একশ’ জন ছাত্র আসতে পারত।

কিন্তু এখন একজন করে ছাত্র একশটি প্রাইভেটকার নিয়ে আসে। এগুলোর পার্কিংয়ের কোনো ব্যবস্থা নেই। সেক্ষেত্রে প্রাইভেটকারগুলো রাস্তার মধ্যে রাখছে। যার ফলে যানজট হচ্ছে। ছাত্র-ছাত্রীরা যে গাড়িগুলো নিয়ে আসে সেগুলোকে পুলিশ প্রশাসন ভালোভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে পারছে না। এখন ট্রাফিক পুলিশ যদি ঐ গাড়িটি ফিরিয়ে দেয়, তাহলে স্টুডেন্ট ক্লাস মিস করবে। এজন্য প্রতিটি স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য আলাদা ট্রান্সপোর্টের ব্যবস্থা করতে হবে। তাহলে কিছুটা যানজট কমে যাবে। আমাদের দেশের ট্রাফিক পুলিশগুলো যানজট নিরসনের চেষ্টা কম করে না।

 

সমস্যা হচ্ছে, গাড়ির ড্রাইভার। দেখুন, ঢাকা শহরে লেগুনার ড্রাইভারগুলো সবাই ছোট ছোট ছেলে। তারা যেভাবে ইচ্ছে হয়, সেভাবে চালায়। মাঝে মাঝে উল্টাপাল্টা চালায়। স্পিডের নিয়ন্ত্রণও ভালোভাবে রাখতে পারে না। কখনো কখনো ব্রেক করতে গিয়ে অন্য গাড়ির সাথে লাগিয়ে দেয়। তাদের অনেকের লাইসেন্সও থাকে না। তাই ড্রাইভারগুলোকে প্রশাসন এমনভাবে চেকিং করতে হবে, যেন লাইসেন্স বিহীন গাড়ি চালাতে না পারে। ট্রাফিক পুলিশকে একটু সচেতন হতে হবে। তারা জনগণকে সচেতন করতে হবে। পথচারীদেরও সচেতন হতে হবে, যেন ট্রাফিক-আইন মেনে রাস্তা পারাপার হন।

পরিচিতি : প্রকৌশলী, গণপূর্ত বিভাগ
মতামত গ্রহণ : গাজী খায়রুল আলম
সম্পাদনা : মোহাম্মদ আবদুল অদুদ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত