প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়স বাড়ছে না

ডেস্ক রিপোর্ট : সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়স বাড়িয়ে ৩৫ বছর করার কোনো পরিকল্পনা আপাতত সরকারের নেই। এছাড়া বিভিন্ন মন্ত্রণালয়, বিভাগ, অধিদপ্তরে ৩ লাখ ৫৯ হাজার ২৬১টি পদ শূন্য রয়েছে বলে জানিয়েছেন জনপ্রশাসন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম।

তিনি জানান, শূন্য পদ পূরণের লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে গতকাল সংসদ অধিবেশনে প্রশ্নোত্তর-পর্বে একাধিক সংসদ সদস্যের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এ তথ্য জানান। মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের অনুপস্থিতিতে তার পক্ষে প্রশ্নের উত্তর দেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ইসমাত আরা সাদেক। সরকারদলীয় সংসদ সদস্য গোলাম দস্তগীর গাজীর প্রশ্নোত্তরে সংসদে মন্ত্রীর দেয়া তথ্যানুযায়ী, বর্তমানে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়/বিভাগ/অধিদপ্তরে প্রথম শ্রেণির (গ্রেড-৯ থেকে তদূর্ধ্ব) ৪৮ হাজার ২৪৬টি, দ্বিতীয় শ্রেণির অর্থাৎ ১০ম থেকে ১২তম গ্রেডে ৫৪ হাজার ২৯৪টি, তৃতীয় শ্রেণির (১৩-১৭তম গ্রেডের) ১ লাখ ৮২ হাজার ৭৩৭টি পদ এবং চতুর্থ শ্রেণির (১৮-২০তম  গ্রেডে) ৭৩ হাজার ৯৮৪টি পদ শূন্য রয়েছে।

তিনি জানান, সরকারি অফিসগুলোতে শূন্য পদে লোক নিয়োগ একটি চলমান প্রক্রিয়া। বিভিন্ন মন্ত্রণালয়/বিভাগ এবং এর অধীন সংস্থাসমূহের চাহিদার প্রেক্ষিতে সরকারি কর্ম কমিশনের মাধ্যমে ৮ম, ৯ম ও ১০-১২ গ্রেডের অর্থাৎ প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির পদে জনবল নিয়োগ করা হয়ে থাকে। এছাড়া ৩য় ও ৪র্থ শ্রেণির পদে স্ব স্ব মন্ত্রণালয়/বিভাগ/সংস্থার জনবল নিয়োগ করা হয়ে থাকে।

স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য ডা. রুস্তম আলী ফরাজীর প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়স বাড়ানোর সম্ভাবনা নাকচ করে দিয়ে বলেন, পূর্বে বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বড় ধরনের সেশনজট থাকলেও বর্তমানে উল্লেখযোগ্য সেশনজট নেই বললেই চলে। ফলে শিক্ষার্থীরা সাধারণত ১৬ বছরে এসএসসি, ১৮ বছরে এইচএসসি এবং ২৩/২৪ বছরে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করে থাকে। তিনি জানান, সাধারণ প্রার্থীদের জন্য চাকরিতে প্রবেশের সর্বোচ্চ বয়সসীমা ৩০ বছর বিধায় স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করার পরও তারা চাকরিতে আবেদনের জন্য কমপক্ষে ৬/৭ বছর সময় পেয়ে থাকে। এছাড়া, ৩০ বছর বয়সসীমার মধ্যে একজন প্রার্থী চাকরির জন্য আবেদন করলে নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হতে ২/১ বছর লাগলেও তা গণনা করা হয় না।

মন্ত্রী জানান, সম্প্রতি চাকরি থেকে অবসর গ্রহণের বয়সসীমা ৫৭ বছর থেকে ৫৯ বছরে উন্নীত হওয়ায় বর্তমানে শূন্য পদের সংখ্যা স্বাভাবিকভাবেই হ্রাস পেয়েছে।

এই প্রেক্ষাপটে চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা বৃদ্ধি করা হলে বিভিন্ন পদের বিপরীতে চাকরি প্রার্থীদের সংখ্যা ব্যাপক হারে বৃদ্ধি পাবে, ফলে নিয়োগের ক্ষেত্রে অধিকতর প্রতিযোগিতার সৃষ্টি হতে পারে। এতে করে যাদের বয়স বর্তমানে ৩০ বছরের ঊর্ধ্বে তারা চাকরিতে আবেদন করার সুযোগ পেলেও অনূর্ধ্ব ৩০ বছরের প্রার্থীদের মধ্যে হতাশার সৃষ্টি হতে পারে। তাই বয়স বাড়ানোর কোনো পরিকল্পনা সরকারের আপাতত নেই। সরকার দলীয় অপর সংসদ সদস্য একেএম শাহজাহান কামালের প্রশ্নের জবাবে জনপ্রশাসন মন্ত্রী জানান, সরকারের ভিভিআইপি এবং ভিআইপিগণের জেলা সফরসহ বিভাগীয় কমিশনার, জেলা প্রশাসন এবং উপজেলা প্রশাসনে মোটর এবং জলযানের জন্য বার্ষিক গ্যাস ও জ্বালানি খাতে ব্যয় হয় ৬ কোটি ৪৮ লাখ টাকা। পেট্রল ও লুব্রিক্যান্ট খাতে সর্বমোট ব্যয় হয় ৩৯ কোটি ৯৩ লাখ টাকা। অপচয় রোধে উপ-সচিব থেকে সিনিয়র সচিব কর্মকর্তাদের যানবাহন চলাচলের জন্য জ্বালানির পরিমাণ নির্ধারণ করা আছে।

সূত্র : মানবজমিন

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত