প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ইসরায়েলের সঙ্গে যুদ্ধ করবে না সৌদি আরব

রাশিদ রিয়াজ : সৌদি আরবের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক না থাকলেও ইসরায়েলের সেনাবাহিনী প্রধান গাদি এইজেনকোট সৌদি অনলাইন নিউজপেপার এলাফ’কে দেয়া এক সাক্ষাতকারে বলেছেন, এ দুটি দেশ কখনো একে অপরের সঙ্গে যুদ্ধ করবে না। ইসরায়েলি প্রভাবশালী পত্রিকা হারতেজ এধরনের সাক্ষাতকারকে ‘অভূতপূর্ব’ উল্লেখ করে বলেছে, সেনাপ্রধান গাদি বলেছেন, বরং ইরানের বিরুদ্ধে সৌদি আরবকে সবধরনের সহায়তা দেবে তার দেশ। তবে তিনি এও বলেছেন, লেবাননে হিজবুল্লাহর ওপর আক্রমনের ইচ্ছা নেই ইসরায়েলের। দুদিন আগে সৌদি আরবের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আদেল জুবায়ের বলেন, হিজবুল্লাহকে নিরস্ত্র না করা পর্যন্ত মধ্যপ্রাচ্যে শান্তি ফিরে আসবে না।

ইসরায়েলের সেনাবাহিনী প্রধান সৌদি আরবের মতই ইরানকে মধ্যপ্রাচ্যে সত্যিকারের সবচেয়ে বড় হুমকিদাতা হিসেবে অভিহিত করেন। এ ব্যাপারে ইসরায়েল ও সৌদি আরব সম্পূর্ণ একমত। ইসরায়েলের সামরিক পরিস্থিতি কখনোই ভাল ছিলনা বলে মন্তব্য করে গাদি বলেন, মধ্যপ্রাচ্যে ‘মডারেট’ দেশগুলো তাই ইসরায়েলকে গণ্য করে। তিনি বলেন, ইরান এ অঞ্চলে অস্থিতিশীল অবস্থা সৃষ্টি করছে এবং অস্ত্র কারখানা বানিয়ে মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে গেরিলাদের যুদ্ধে উদ্বুদ্ধ করছে। ইরান মধ্যপ্রাচ্যের নিয়ন্ত্রণ নিতে যাচ্ছে, লেবানন থেকে লোহিত সাগর পর্যন্ত শিয়া ইসলাম কায়েম করতে চায় দেশটি। ইসরায়েল ও সৌদি আরব তা অবশ্যই মোকাবেলা করবে। কারণ ইরান ধীরে ধীরে আধিপত্য বিস্তার করছে। যা ব্যাপক কৌশলগত সংঘাতের দিকে নিয়ে যেতে পারে।

ইসরায়েলের সেনাপ্রধান বলেন, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ইরানের ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচির বিরুদ্ধে ও সিরিয়া এবং ইরাকে দেশটির প্রভাব খর্ব করতে চাচ্ছেন, তাকে স্বাগত জানান। মধ্যপ্রাচ্যে কোনো আন্তর্জাতিক কোয়ালিশন সৃষ্টির সম্ভাবনা নেই এমন মন্তব্য করে গাদি বলেন, ইরানের আগ্রাসন মোকাবেলায় আমরা আরব দেশগুলোকে তথ্যগত সাহায্য অব্যাহত রাখব। ইরানের বিরুদ্ধে গোয়েন্দা তত্ত্ব দেয়ার জন্যে তার দেশ তৈরি। আমরা এসব দেশের সঙ্গে নিজেদের স্বার্থেই তথ্য আদান প্রদান করছি।
ইসরায়েলের সেনাপ্রধান আরো বলেন, ইরানের বিরুদ্ধে ইসরায়েল ও সৌদি আরব একটি বইয়ের একই পৃষ্ঠার সমতুল্য।

ওয়াশিংটনে চীফ অব স্টাফের সঙ্গে বৈঠকের কথা উল্লেখ করে গাদি বলেন, সৌদি প্রতিনিধির বক্তব্য সেখানে আমার কাছে অত্যন্ত মূল্যবান মনে হয়েছে। কারণ ইরানের আধিপত্য বিস্তার মোকাবেলায় আমাদের এক সঙ্গে লড়াই অক্ষুণœ রাখতে হবে। সিরিয়া থেকে হিজবুল্লাহকে সরে যেতে হবে। সিরিয়া থেকে ইরানকেও সরতে হবে। গোপনের চেয়ে এ দাবি আমরা প্রকাশ্যেই করি। সিরিয়ায় ইরানের অবস্থান আমরা কখনো মেনে নেব না।

গাদি লেবাননের প্রধানমন্ত্রী সাদ হারিরির পদত্যাগকে বিস্ময়কর অভিহিত করে বলেন, হিজবুল্লাহ অর্থ সংকটে পড়েছে এবং তাদের জনসমর্থন কমছে। যুক্তরাষ্ট্র চেষ্টা করছে মধ্যপ্রাচ্যে সুন্নি মুসলিম দেশগুলোকে শক্তিশালী করতে এমন মন্তব্যও করেন গাদি। রাশিয়া বরং ইরান, হিজবুল্লহ ও সিরিয়ার পক্ষ নিয়েছে আবার আইএস জঙ্গিদের বিরুদ্ধে লড়ছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ