প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

খালেদা জিয়ার বক্তব্য সংগঠনকে শক্তিশালী করবে : বিএনপি

মাঈন উদ্দিন আরিফ : সমাবেশে দেওয়া খালেদা জিয়ার বক্তব্য সংগঠনকে শক্তিশালী করবে বলে মনে করছেন বিএনপির নীতিনির্ধারণী ফোরামের নেতারা। তারা বলছেন, খালেদা জিয়ার বক্তব্য অত্যন্ত ইতিবাচক। তিনি পরিস্কার করে বলে দিয়েছেন আমরা কি চায়, নির্বাচিত হলে আমরা কি করবো এবং কি ধরনের নির্বাচন চাই আমরা।

এ বিষয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, সংগঠনকে শক্তিশালী করার জন্য ম্যাডাম খালেদা জিয়ার বক্তব্য শক্তিশালী ভূমিকা রাখবে। কেননা অনেকদিন পরে আমাদের এ সমাবেশ। এই সমাবেশ নেতাকর্মীদের মধ্যে উৎসাহ-উদ্দীপনা এবং আত্মবিশ্বাস বাড়িয়েছে।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, সরকার বিএনপির সমাবেশকে কেন্দ্র করে সারাদেশের যাতায়াত বন্ধ করে দিয়েছে। ঢাকার মধ্যে সকল গণপরিবহন বন্ধ করে দিয়েছে এবং এর আগে থেকে পুলিশ নেতাকর্মীদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে তাদের আটক করেছে। তারপরও সকল বাধা উপেক্ষা করে নেতাকর্মীরা সমাবেশে স্বতঃস্ফূর্তভাবে উপস্থিত হয়েছেন। সরকার বাধা না দিলে সমাবেশে আরো ২ লাখ মানুষ বেশি হতো।

সমাবেশে বেগম খালেদা জিয়া অত্যন্ত ইতিবাচক বক্তব্য রেখেছেন দাবি করে দলের অপর স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিষ্টার মওদুদ আহমেদ বলেন, খালেদা জিয়া তার বক্তব্যে পরিস্কার করে দিয়েছেন যে, আমরা কি চাই, আমরা নির্বাচিত হলে কি করবো, আমরা কি ধরনের নির্বাচন চাই। অর্থাৎ তিনি বলেই দিয়েছেন বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর অধীনে কোন নির্বাচন নয়। দলীয় সরকারের অধীনে কোন নির্বাচন সুষ্ঠু ও অবাধ হবে না। সেটাই তিনি সমাবেশে বোঝাতে চেষ্টা করেছেন।

নেতাকর্মীদের মধ্যে যে ভয়-ভীতি ছিল এখন তা কেটে গেছে উল্লেখ করে সাবেক এ মন্ত্রী বলেন, ঢাকা শহরে বিএনপি নেতাকর্মীদের মধ্যে যে ভয়-ভীতি ছিল, এখন তা কেটে গেছে এবং তাদের মধ্যে প্রচ- রকমের উৎসাহ-উদ্দীপনা দেখতে পাচ্ছি। এই উৎসাহ-উদ্দীপনা বিএনপিকে আরো শক্তিশালী করবে।

সরকার সমাবেশে বাধা দিয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, সমাবেশে আসতে সরকার বাধা না দিলে সারা ঢাকা শহরের বাকি রাস্তাগুলো ভরে যেত। মওদুদ বলেন, বিশাল জনসভায় স্বতঃস্ফূর্ত ভাবে ঢাকা শহরের বিভিন্ন অংশের মানুষ যে ভাবে যোগদান করেছে এতেই প্রমাণিত হয়, দেশেরে মানুষ এখন একটা পরিবর্তন চায়।