প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

কোমর বেঁধে নামছে আওয়ামী লীগ

ডেস্ক রিপোর্ট: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন, বিশেষ করে ছয় সিটি করপোরেশন নির্বাচন সামনে রেখে প্রচারের জোর প্রস্তুতি নিয়ে মাঠে নামছে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ। আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন সরকারের গত ৯ বছরে অবকাঠামোসহ বিভিন্ন খাতে উন্নয়নের পাশাপাশি বিএনপি-জামায়াতের আগুন-সন্ত্রাস ও নাশকতার চিত্র তুলে ধরে ভোটারদের নজর কাড়তে চায় দলটি।

বিশেষ করে তরুণ ও নারী ভোটারদের কাছে দলটির বেশি যাওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে। বিভিন্ন স্থানে আওয়ামী লীগ তাই নারীদের নিয়ে সভা-সমাবেশ শুরু করেছে।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সাতই মার্চের ভাষণ বিশ্ব ঐতিহ্যের স্বীকৃতি পেয়েছে গত ৩০ অক্টোবর। এর পর থেকেই ওই ভাষণ বিভিন্ন স্থানে প্রচার করছে আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনগুলো। বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ভাষণের স্বীকৃতি উপলক্ষে আগামী ১৮ নভেম্বর আওয়ামী লীগ রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশ ডেকেছে। ওই সমাবেশ সফল করার ব্যাপক প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে বলে দলীয় সূত্রে জানা গেছে।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ড. আবদুর রাজ্জাক বলেন, ‘১৮ নভেম্বর আমরা সমাবেশ করব সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে। প্রস্তুতি চলছে। ’

রোহিঙ্গাদের ত্রাণ দিতে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার কক্সবাজার সফরকে নির্বাচন-পূর্ব কৌশলী প্রচার হিসেবেই দেখছেন আওয়ামী লীগের শীর্ষস্থানীয় নেতাদের অনেকে।

আওয়ামী লীগ খালেদা জিয়ার ওই সফরের পর প্রকাশ্যে পাল্টা কোনো কর্মসূচি না দিলেও দেশব্যাপী ব্যাপক প্রচারের প্রস্তুতি নিচ্ছে।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের দল গোছানোকে বড় চ্যালেঞ্জ মনে করেন। কক্সবাজারে দলের পক্ষ থেকে রোহিঙ্গাদের ত্রাণদান কর্মসূচিতে অংশ নেওয়ার মধ্যেও তিনি সদস্য সংগ্রহ কর্মসূচি নিজে গিয়ে উদ্বোধন করছেন বিভিন্ন স্থানে। বিভিন্ন জেলায় গিয়ে তিনি নেতাকর্মীদের নির্বাচনী প্রস্তুতি নিতে কোন্দল মিটিয়ে এক হয়ে কাজ করার নির্দেশ দিচ্ছেন। দলের সাধারণ সম্পাদকের সফরের পর ওই সব জেলায় সংগঠন গোছানোর কাজ আগের চেয়ে গতি পেয়েছে বলে দলের স্থানীয় নেতারা জানিয়েছেন।

জাতীয় নির্বাচনের আগেই হবে ছয় সিটি করপোরেশনের নির্বাচন। আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের একাধিক নেতা জানান, ছয় সিটি করপোরেশনের নির্বাচনে দলের জনপ্রিয়তা যাছাই হবে। সে জন্য ভোট বেশি টানতে পারেন এমন প্রার্থীকে মনোনয়ন দেওয়া হচ্ছে। আগামী ২১ ডিসেম্বর রংপুর সিটি করপোরেশনের নির্বাচন হবে। ওই নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে বর্তমান মেয়র শরফুদ্দিন আহমেদ ঝন্টুকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। এর আগে রাজশাহী ও সিলেট সিটি নির্বাচনের জন্য মাঠে নামতে দলের দুই নেতাকে ভোটারদের কাছে যেতে সংকেত পাঠানো হয়েছে।

দলীয় সূত্রে জানা যায়, দলের সদস্য সংগ্রহের ক্ষেত্রে প্রাধান্য পাচ্ছে নতুন ভোটার ও নারীরা। আগামী ২৪ নভেম্বর সাতক্ষীরা এবং ২৫ নভেম্বর খুলনায় সদস্য সংগ্রহ অভিযান উদ্বোধন করবেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। ২৯ নভেম্বর তিনি যাবেন চাঁপাইনবাবগঞ্জে। সদস্য সংগ্রহের অভিযান গতি পাওয়ায় কেন্দ্র থেকে পাঠানো বই শেষ হয়ে যাচ্ছে। আবার তা ছাপতে হবে। গত মাসে দলের ৭৮টি সাংগঠনিক জেলার মধ্যে ৩০টির পক্ষ থেকে নতুন সদস্য সংগ্রহের নির্ধারিত বই নেওয়া হয়েছে। গত ১৮ জুলাই থেকে দলের কেন্দ্রীয় নেতারা সদস্য সংগ্রহের জন্য দেশের বিভিন্ন সাংগঠনিক ইউনিট  সফর শুরু করেন। সর্বশেষ গত শনিবার গাজীপুরে বিশাল জনসভায় ওই কর্মসূচি উদ্বোধন করেন দলের সাধারণ সম্পাদক। ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ আওয়ামী লীগের অভিযানও উদ্বোধন করা হয়েছে। গত ২১ অক্টোবর সিলেটে সদস্য সংগ্রহ কর্মসূচি উদ্বোধন করেন দলের সাধারণ সম্পাদক। এর আগে ১৬ অক্টোবর জয়পুরহাটে, ২৭ জুলাই বরিশাল ও পটুয়াখালীতে ওই কর্মসূচি উদ্বোধন করা হয়। গত ৩০ জুলাই নারায়ণগঞ্জেও শুরু হয় এ কর্মসূচি।

সূত্র মতে, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলীয় প্রচারাভিযানে ডিজিটাল প্রযুক্তি ব্যবহারের ব্যাপক প্রস্তুতি নিচ্ছে ক্ষমতাসীন দল। প্রচারের ক্ষেত্রে বেশি গুরুত্ব দেওয়া হবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমকে। নির্বাচনে দলীয় প্রচারের জন্য পাঁচ সদস্যের কমিটি করা হয়েছে।

দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবদুর রহমান বলেন, ‘দলীয় সভাপতির নির্দেশে আমরা দল গোছাচ্ছি। এটি চলামান বিষয়। সিটি ও জাতীয় নির্বাচন সামনে রেখে প্রচারেরও প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। ’

জানা গেছে, নির্বাচনী প্রচারে বেশি গুরুত্ব পাবে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন সরকারের গত ৯ বছরের উন্নয়নচিত্র। বিশেষ করে পদ্মা সেতু, মেট্রো রেল, মাতারবাড়ী কয়লাবিদ্যুৎ কেন্দ্রসহ বিভিন্ন প্রকল্পের কথা প্রচার করা হবে জোরেশোরে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ১০টি উদ্যোগকে বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে প্রচার করা হচ্ছে। এসবের মধ্যে একটি বাড়ি একটি খামার, ডিজিটাল বাংলাদেশ, কমিউনিটি ক্লিনিক, ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেওয়ার সাফল্যচিত্রও আছে। তুলে ধরা হবে নারীর ক্ষমতায়ন, সবার জন্য শিক্ষা, সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি ছাড়াও আশ্রয়ণ প্রকল্প, বিনিয়োগ বিকাশ আর পরিবেশ সুরক্ষার উদ্যোগ। কালের কণ্ঠ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ