প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আর্জেন্টিনা প্রেসিডেন্টের পরিবারকেই অপরাধী বললেন ম্যারাডোনা

স্পোর্টস ডেস্ক: দুজনের সম্পর্কটা এক সময় বেশ অন্তরঙ্গই ছিল। উপরের ছবিটিই তার প্রমাণ। কিন্তু সেই সুসম্পর্কের ‘সু’ উধাও হয়ে আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্ট মরিসিও ম্যাক্রি ও ডিয়েগো ম্যারাডোনার সম্পর্কটা এখন সাপে-নেউলের। সুযোগ পেলেই দেশের প্রেসিডেন্টের চৌদ্দগোষ্ঠি উদ্ধার করে ছাড়েন ম্যারাডোনা। সমালোচনা করেন চাচাছোলা ভাষায়। তবে তির্যক কথার বাক্যবাণে আর্জেন্টিনার ‘ফুটবল ঈশ্বর’ এবার বুঝি নিজের অতীত রেকর্ডও ভেঙে দিলেন। আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্টের ‘পরিবার’ নিয়েই টান মেরেছেন। বললেন, আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্ট উঠে এসেছেন ‘অপরাধী’ পরিবার থেকে!
শুধু তাই নয়। ম্যারাডোনা অভিযোগ করেছেন, ম্যাক্রির বাবা মিলিয়ন ডলার ঋণী ছিলেন। বিশাল অঙ্কের সেই ঋণের টাকা কিভাবে তিনি পরিশোধ করেছেন, আদৌ পরিশোধ করেছেন কিনা, তা নিয়েও সংশয় প্রকাশ করেছেন ম্যারাডোনা। প্রতিপক্ষ রাজনীতিবিদের মতো অভিয়োগ করেছেন, ম্যাক্রি প্রেসিডেন্ট হয়ে দেশটার সর্বনাশ করছেন!
রাজনীতিতে নাম লেখানোর আগে প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রিও ছিলেন ফুটবলের লোক। ৫৭ বছর বয়সী ম্যারাডোনা যখন বোকা জুনিয়রে ছিলেন, তখন ৫৮ বছর বয়সী ম্যাক্রি ছিলেন আর্জেন্টিনার ক্লাবটির সভাপতি। সময়ের ¯্রােতে ফুটবল সংগঠক থেকে সেই ম্যাক্রি এখন দেশের সর্বোচ্চ পদে অধিষ্ঠিত। ২০১৫ সালে নির্বাচিত হয়েছেন প্রেসিডেন্ট।
কিন্তু ম্যারাডোনার কথা শুনে মনেই হয় না ম্যাক্রি আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্ট। দেশের ‘এক নম্বর নাগরিক’কে কেউ এমন ভাষায় আক্রমণ করতে পারেন! অন্যদের পক্ষে অসম্ভব হলেও ম্যারাডোনা কাছে তা ডালভাত!
ভেনেজুয়েলান টেলিভিশনকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ম্যারাডোনা প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রির সমালোচনার শুরুটা করেছিলেন ফুটবল দিয়েই। কিন্তু দ্রুতই সেই কথার বান পৌঁছায় ম্যাক্রির পরিবার পর্যন্ত। ম্যারাডোনার তোপ থেকে রেহাই পাননি ম্যাক্রির বাবাও।
ম্যাক্রি সভাপতি থাকাকালে একবার বোকা জুনিয়র্সে যান। বোকার মাঠে তখন কাদা ছিল। কিন্তু সভাপতি ম্যাক্রি কাদাকে ‘ময়লা’ বলে আখ্যায়িত করেন। সেই প্রসঙ্গ টেনেই ম্যাক্রি-সমালোচনার শুরুটা করেন ম্যারাডোনা, ‘কাদা কি, সেটাই জানে না ম্যাক্রি। সে বোকায় যায় এবং বলে কিনা ময়লা! মাঠের কাদা নিয়ে তার কথা-বার্তা ছিল অবিশ্বাস্য, হাস্যকর। সেখানে যা বৃষ্টি, সেখানে সেটাই কাদা।’
কথার বাক ঘুরিয়ে এরপরই ম্যারাডোনা আক্রমণ করে বসেন প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রিকে। নিজের স্বভাবসূলভ ভাষায় বলেন, ‘আমি বুঝতে পারি না, কেন আর্জেন্টিনার মানুষ তাকে ভোট দিয়েছে। সে প্রেসিডেন্ট হওয়ায় আমরা ডুবছি। ম্যাক্রি অপরাধী পরিবার থেকে উঠে এসেছেন। আমরা কিন্তু পরিশ্রম করেই আয়-রোজগার করি।’
ম্যারাডোনার এই সমালোচনার প্রতিক্রিয়ায় প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রি কি বলেন, করেন, আর্জেন্টাইনদের কৌতুহল নিশ্চয় সেদিকেই। স্পোর্টসটুডে

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ