প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

এনইউএল মেডিক্যাল ইউনিভার্সিটির গবেষণা
মৃত্যুর পরও মানুষ শুনতে ও দেখতে পায়

ওয়ালি উল্লাহ সিরাজ: যে মানুষের জন্ম হয়েছে তাকে অবশ্যই মৃত্যু বরণ করতে হবে। দুনিয়া সৃষ্টি হওয়ার পর থেকে অনেক মানুষেরই জন্ম হয়েছে এবং একটা নির্দিষ্ট সময় দুনিয়াতে বসবার করার পরে তাকে মৃত্যুবরণ করতে হয়েছে। প্রত্যেক মানুষকে মৃত্যু বরণ করতে হবে এই বিষয়ে পবিত্র কুরআনে মহান আল্লাহপাক বলেছেন, প্রত্যেক প্রাণকে মৃত্যুর স্বাদ গ্রহণ করতেই হবে। (আল ইমরান- ১৮৫) তিনি আরো বলেছেন, মৃত্যু যন্ত্রনা সত্যসত্যই আগমণ করবে, যা থেকে তুমি অব্যাহতি চাচ্ছিলে। (ক্বাফ: ১৯)

আল্লাহ তায়ালা আরও বলনে, কখনই নয়, যখন প্রাণ কন্ঠাগত হবে এবং বলা হবে কে তাকে (রক্ষা করার জন্য) ঝাড়-ফুঁক করবে। আর সে মনে করবে যে, বিদায়ের সময় এসে গেছে। (ক্বিয়ামাহ: ২৬-২৮)
নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, জীবনের স্বাদ বিনষ্টকারী (মৃত্যুর) কথা তোমরা বেশী বেশী স্মরণ কর। (তিরমিযী, নাসাঈ, ইরউয়া- ৬৮২) তাই প্রতিটি মুসলমানের কর্তব্য হল অধিকহারে সৎআমল করা এবং মৃত্যুর জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করা।

একটা জীবিত মনুষের হৃদপি- যখন থেমে যায় । শরীরটা নিথর হয়ে যায় আর চিকিৎসক ঘোষাণা দিয়ে দেন যে, তিনি আর বেঁচে নেই। একথা শোনার পর শোক নেমে আসে মৃতব্যক্তির পরিবারের মধ্যে। তবে আপনি কি জানেন এই শোক আর এই আহাজারি সেই মৃত ব্যক্তিটিও শুনতে পান? গবেষকরা এমনটাই দাবি করেছেন।
তাত্ত্বিকভাবে একজন মানুষ মৃত্যুর কোলে ঢোলে পড়লেও একেবারে তিনি ফুরিয়ে যান না। তার চেতনা নির্দিষ্ট সময় পযর্ন্ত সজাগ থাকে। এমনকি মৃত ব্যক্তিকে কবরে রাখার আগ পর্যন্ত আত্মীয়-স্বজনসহ সকল মানুষের কথাই শুনতে পান। কিন্তু তার কিছু করার মত শক্তি বা সামর্থ থাকে না। নিউওয়ার্ক শহরের এনএউএল মেডিক্যাল ইউনিভার্সিটির গবেষকগণ তাদের গবেষণায় এমটাই প্রমাণ পেয়েছে।

তারা হৃদরোগে আক্রান্ত রোগীদের পর্যবেক্ষণ করেছেন। যারা অঙ্গ-প্রতঙ্গের দিক থেকে কার্যকরভাবে মৃত। কিন্তু পুনরায় তারা আবার বেঁচে উঠেছেন। বিভিন্ন ক্ষেত্রে দেখা গেছে এমন রোগিরা মৃত্যুর পরও মানুষের কথা শুনতে পান। মেডিক্যাল ও নার্সিং স্টাফরা পরে এসবের সত্যতার প্রমাণ পেয়েছেন।

একজন মানুষ মৃত্যুবরণ করার পরে তাকে গোসল করানোসহ যতগুলো কর্যক্রমের কথা হাদিসে এসেছে এ সব ক্ষেত্রে আস্তে আস্তে করানোর কথা এসেছে। আর আস্তে করানো কারণ হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে যে জোড়ে করালে মৃত ব্যক্তি কষ্ট পাবেন। আজ থেকে ১৪০০ বছর পূর্বে আমাদের নবী (সা.) যে কথাগুলো বলে গেছেন গবেষকরা এখন গবেষণা করে সেই বিষয়গুলোই প্রমাণ করছেন। আল্লাপাক আমাদেরকে হাদিস কুরআন বুঝে আমল করার তাওফিক দান করুন। সূত্র: টপ স্টোরিস ও প্রিয়.কম

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ