প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সাভারে ডিবি পরিচয়ে চাঁদাবাজি; বেরিয়ে আসছে চাঞ্চল্যকর তথ্য (ভিডিও)

উমর ফারুক : আশুলিয়া শিল্পাঞ্চল পুলিশের এএসআই মকবুল হোসেনের কাছে জিম্মি হওয়া ৯২ জন ভুক্তভোগীর নাম ঠিকানা পাওয়া গেছে । ডিবির পরিচয়ে জিম্মি করে তাদের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেওয়া হয়েছে। মাইক্রোবাস পার্টি হিসেবে পরিচিত এই চক্রের ৫ জন সদস্য ধরা পড়ায় স্বস্তি নেমে এসেছে স্থানীয়দের মাঝে।

আশুলিয়া শিল্পাঞ্চল পুলিশের এএসআই মকবুল হোসেন টাকা বানানোর নেশায় গড়ে তোলেন জিম্মি চক্র। ৫/৬ জনের এই দলের নেতৃত্ব দিতেন তিনি নিজেই। আটকের পর তার কাছ থেকে পাওয়া একটা খাতায় পাওয়া গিয়েছে ভুক্তভোগী ৯২ জনের নাম ঠিকানা।

ঢাকার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাইদুর রহমান বলেন, একটি রেজিস্টার উদ্ধার করা হয়েছে। যে রেজিস্টারে যখনি তারা কোন লোককে মাইক্রোবাসে উঠিয়েছে তখন তার নাম, পিতার নাম, ফোন নম্বর লিপিবদ্ধ করে রেখেছে যাতে তাদের মাঝে কোন ভুল বোঝাবুঝি না হয় সেই হিসাব রাখার জন্যে।

এই চক্রটির পরিচয় দিতে ডিবি পুলিশ হিসেবে মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে পকেটে মাদকদ্রব্য ঢুকিয়ে, কখনো অসামাজিক কার্যকলাপের দায় চাপিয়ে সাধারণ মানুষের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিত তারা।অভিযোগ জানাতে অনেকেই এখন ছুটে আসেন থানায়।

ভুক্তভোগী এক যুবক বলেন, আমাকে হ্যান্ডক্যাপ পরালে আমি জানতে চাইলাম আমাকে হ্যান্ডক্যাপ পরালেন কেন? আমার কাছে কি পায়ছেন? আমার কাছে একটা মোবাইলের বাক্স ছিলো, তারা বলছে এই বাক্সের মধ্যে ১০ পিছ ইয়াবা পাওয়া গিয়েছে, তোকে কোর্টে চালান দেওয়া হবে।

ভুক্তভোগী এক তরুণী জানান, হঠাৎ করে আমাদের বললো আমরা স্বামী-স্ত্রী না।আমি তাদের জানালাম যদি আমাদের সন্দেহ লাগে তাহলে আমাদের বাড়িতে চলেন আমরা প্রমাণ দিবো।

অন্য এক ভুক্তভোগী জানান, আমার বড় ভাই ওদের ৫ হাজার টাকা দিয়েছে সন্ধা সাড়ে ৭ টার দিকে, কিন্তু ঐ টাকায় ওদের হয়নি।

এক পুলিশ সদস্য জানায়, আমরা প্রতিদিন রাতে ঘুরি আর এমন চক্র খুজি কারণ এই ধরনের চক্রের জন্য আমাদের থানা পুলিশের বদনাম হয়।

চক্রটি আটক হওয়ায় স্থানীয় ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষের মাঝে কিছুটা স্বস্তি ফিরে এসেছে।

স্থানীয় এক বাসিন্দা জানান, বিকাশের মাধ্যমে আমাদের টাকা পয়সা নিয়েছে কিন্তু চক্রটা আমরা ধরতে পারি নাই।আজকে আশুলিয়া পুলিশ এদের ধরেছে তাই আমরা সাধারণ জনগণ অনেক খুশি হয়েছি।

অভিযুক্ত এএসআই মকবুল হোসেনসহ আটককৃতদের বিরুদ্ধে থানায় মামলা হয়েছে । সাময়িক ভাবে বরখাস্থ হয়েছে পুলিশের এই সদস্য।

আশুলিয়ায় চাঁদাবাজির সময় আটক শিল্পাঞ্চল পুলিশের এএসআই মকবুল হোসেনকে একটি মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে নিয়েছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার চিপ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্টেট আদালতে হাজির করে তদন্ত করা হয়েছে। রিমান্ডের স্বার্থে মকবুলের ৫ দিনের রিমান্ড আবেদন হয়েছে।এর আগে গতরাতে পুলিশ কর্মকর্তার চাঁদাবাজির স্বীকার ভুক্তভোগী রায়হান নামের এক ব্যক্তি আশুলিয়া থানায় একটি ডাকাতির মামলা করেন । মামলার তদন্ত ভার দেওয়া হয়েছে আশুলিয়া থানার উপপরিদর্শক লোকমান হোসেনকে ।

https://youtu.be/h4CVwvZZqJo

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত