প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বুধবার থেকে শুরু হচ্ছে ডেনিম এক্সপো ২০১৭
সম্ভাবনার খাত ডেনিম শিল্প উদ্যোগের অভাবে পিছিয়ে

আরিফুর রহমান তুহিন: বিশ্ববাজারে ডেনিম (জিন্স) পণ্যের প্রায় ৫৬ বিলিয়নের বিশাল বাজার থাকলেও পিছিয়ে আছে এ শিল্প। এজন্য ব্যবসায়ীরা দোষারোপ করছে রপ্তানি খাতের সাথে সংশ্লিষ্টদের। তারা বলেছেন, যদি এই খাতকে এখনই এগিয়ে না নেওয়া যায় তবে ২০২১ সাল নাগাদ পোশাক শিল্প থেকে ৫০ বিলিয়ন রপ্তানির যে পরিকল্পনা করা হয়ে তা বাধাগ্রস্ত হতে পারে।

বিজিএমইএ এবং বাণিজ্য মন্ত্রণালয় বলছে, ডেনিম শিল্প আগের থেকে এখন আরো ভালো অবস্থানে রয়েছে। বর্তমানে এই বাজার থেকে আয় প্রায় সাড়ে ৩ বিলিয়ন যা ২০২১ সালে এই শিল্প থেকে ৭ বিলিয়নে পৌঁছবে। তবে বিনিয়োগকারীদের আমদানি নির্ভর না হয়ে দেশে ডেনিমের কাপড় উৎপাদনে এগিয়ে আসতে হবে বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।

বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার (ডব্লিউটিও) তথ্যমতে, বর্তমানে বিশ্বব্যাপী ডেনিম পণ্যের বার্ষিক চাহিদা প্রায় ৩শ কোটি পিচ। প্রতি বছরই এই চাহিদা বাড়ছে। ২০২১ সাল নাগাদ ডেনিম পণ্যের বাজার দাঁড়াবে ৬০ বিলিয়ন মার্কিন ডলারেরও বেশি। বর্তমানে এই খাতের বাজার ৫৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। আর এর বড় যোগনদাতা চীন। বাংলাদেশ এই খাত থেকে রপ্তানি করছে মাত্র ৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের কাছাকাছি। যা মোট বাজারের ৫ শতাংশের কিছু বেশি।

‘স্টারটিজি’ নামক বাজার গবেষণা প্রতিষ্ঠান বলছে, আগামিতে বাংলাদেশকেও এই খাতের অন্যতম ভবিষ্যৎ মোড়ল হিসেবে দেখা যেতে পারে। তবে বর্তমান পরিস্থিতির কারণে তারা বাংলাদেরে উপর আস্থা রাখতে পারছে না। বর্তমানে এই শিল্পের নিয়ন্ত্রক চীনের হাত থেকে বাজার হাতছাড়া হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলেও মনে করে স্টারটিজি।

‘ডেনিম হেল্প’ বলছে, আগামিতে ডেনিম পণ্যে চীন, ভারত, তুরস্ক, ব্রাজিল, ভিয়েতনাম রাজত্ব করতে পারে। বাংলাদেশে উদ্যোক্তা থাকলেও কিছু সমস্যার কারণে দেশটি প্রতিযোগিতা করতে পারবে না। এগুলো হলো, জিটুজি সম্পর্ক উন্নয়নের অভাব, পোশাক রপ্তানি সংগঠনগুলোর অবহেলা, মানসম্পন্ন নতুন পণ্যের উদ্ভাবন করতে না পারা, ডেনিমের কাপড়ের বেশিরভাগ আমদানি নির্ভর এবং বিশ্ব দরবারে দেশটির পোশাক খাত নিয়ে নেতিবাচক প্রচারণা অন্যতম।

শিনশিন অ্যাপারেলস লিমিটেডের চেয়ারম্যান সোহেল সাদাত তার ব্যক্তিগত সহকারি সিদ্দিকের মাধ্যমে জানান, বর্তমানে দেশের ডেনিম শিল্প আগের থেকে কিছুটা খারাপ যাচ্ছে। কারখানা বাড়লেও আনুপাতিক হারে অর্ডার বাড়েনি। বিশ্ববাজারে চাহিদা বাড়ার পরেও দেশে অর্ডার কম থাকার কারণ কি জানতে চাইলে তিনি জানান, সমস্যা অগনিত কিন্তু সমাধানে কেউ সফল হচ্ছে না।

ডেনিম এক্সপার্ট লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোস্তাফিজ উদ্দিন মনে করেন, বৈশ্বিক বাজারে আরও প্রসারের ক্ষেত্রে অবকাঠামোগত উন্নয়ন বাংলাদেশের প্রধান চ্যালেঞ্জ। এক্ষেত্রে উন্নয়নের জন্য সরকার অনেক কাজ করে যাচ্ছে। এছাড়া, বন্দরে অদক্ষতা, অপর্যাপ্ত রেল এবং সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা, গ্যাস এবং বিদ্যুৎ সংকট সমাধানসহ একটি গভীর সমুদ্রবন্দর নির্মাণ বাংলাদেশের জন্য প্রধান চ্যালেঞ্জ। তবে পোশাক রফতানিকারক দেশ হিসেবে বিশ্বকে দেওয়ার মতো অনেক কিছু আছে বাংলাদেশের। সবার আগে আমাদের দেশকে ব্র্যান্ড হিসেবে উপস্থাপন করতে হবে।

এদিকে ডেনিমের প্রসারে বুধবার থেকে ২ দিন ব্যপী ডেনিম এক্সপো করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ তৈরি পোশাক উৎপাদনকারক ও রপ্তানিকার সমিতি (বিজিএমইএ)। রাজধানীর বসুন্ধরা আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে এই এক্সপো অনুষ্ঠিত হবে। এই ধরণের এক্সপো ডেনিম রপ্তানি বৃদ্ধিতে আরো সহযোগীতা করবে বলে মনে করছে আয়োজকরা। সম্পাদনা : উম্মুল ওয়ারা সুইটি