প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বাণিজ্য ইস্যুতে জাপান থেকে খালি হাতে ফিরলেন ট্রাম্প

লিহান লিমা: দীর্ঘ ১২ দিনের এশিয়া সফরের শুরুতে মিত্রদেশ জাপান সফরে বাণিজ্য ইস্যুতে খুব একটা সুবিধা করে উঠতে পারলেন না মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এছাড়া বাণিজ্য ঘাটতি মোচন করতে ট্রাম্প প্রশাসনের দ্বিপক্ষীয় অবাধ ও মুক্ত বাণিজ্য চুক্তির প্রস্তাব সুকৌশলে এড়িয়ে যায় শিনজো অ্যাবের দেশ।

ব্লুমবার্গের খবরে বলা হয়, ‘প্রধানমন্ত্রী শিনজো অ্যাবের সঙ্গে গল্ফ, ডিনার ও দ্বিপক্ষীয় বৈঠকের পর উত্তর কোরিয়া ইস্যুতে দুই নেতা ঐক্যমতে পৌঁছলেও জাপানের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য ঘাটতি নিয়ে ট্রাম্পের অভিযোগের কোন সুরাহা হয়নি।’

সফরের দ্বিতীয় দিন দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে দুই দেশের নিরাপত্তা, বাণিজ্য নিয়ে আরো এক হয়ে কাজ করার বিষয়ে আলোচনা করেন ট্রাম্প-অ্যাবে। এরপর টোকিওতে মার্কিন ও জাপানের ব্যবসায়ীদের সম্মেলনে ট্রাম্প বলেন, ‘আমরা মুক্ত ও সম বাণিজ্যে বিশ্বাসী কিন্তু জাপানের সঙ্গে আমাদের বাণিজ্য মুক্ত ও সম নয়। ট্রাম্প আরো বলেন, ‘অনেক বছর ধরেই জাপানের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য ঘাটতি রয়েছে। জাপান থেকে যুক্তরাষ্ট্রে মিলিয়ন মিলিয়ন গাড়ি বিক্রি হয় কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রের কোন গাড়ি জাপানে আসে না। ট্রাম্প এই সময় জাপানি গাড়ি নির্মাতাদের যুক্তরাষ্ট্রে প্রতিষ্ঠান নির্মাণে আহ্বান জানান।’

জাপানের অর্থমন্ত্রী ও ডেপুটি প্রধানমন্ত্রী তারো অ্যাসো বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বাণিজ্য ঘাটতি মোচন করতে দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য চুক্তির চাইতে যুক্তরাষ্ট্র-জাপান অর্থনৈতিক আলোচনাই সবচাইতে বেশি কার্যকর। এটি সত্যি যে জাপানের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য ঘাটতি রয়েছে, কিন্তু মুক্ত বাণিজ্য চুক্তি এই সমস্যা সমাধানের পথ হতে পারে না।’ অ্যাসো আরো বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র জাপানকে সামরিক সরজ্ঞাম ক্রয়ের আহ্বান জানিয়েছে। আমরা নিরাপত্তা ও সুরক্ষার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে সামরিক সরঞ্জাম ক্রয় করব। এটি যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বাণিজ্য ঘাটতি হ্রাস করবে।’

যুক্তরাষ্ট্র ও জাপানের বাণিজ্যিক সম্পর্ক নিয়ে জাপানের বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সাবেক সচিব ও জাপানের কেইয়ো বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক হারুকি কিশি বলন, সবচাইতে বড় সমস্যা হল অ্যাবে যুক্তরাষ্ট্র কি চান তা নিশ্চিত নন। জাপানের প্রশাসন ইতোমধ্যেই বলেছে, যুক্তরাষ্ট্রের গাড়ির জন্য জাপানের দরজা খোলা আছে কিন্তু জাপানিরা মার্কিন গাড়ি কিনতে আগ্রহী নয়।

রিতসুমেইকেন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ও সাবেক কূটনৈতিক কুনিহিকো মিয়েকি বলেন, ‘গত কয়েক দশকে জাপান ও যুক্তরাষ্ট্রের কোন সম্মেলনে এশিয়ার নিরাপত্তা পরিস্থিতির ওপর এত জোর দেয়া হয় নি। দুই নেতা বিশ্বের বিভিন্ন ইস্যুকে যৌথভাবে সামাল দেয়ার বিষয়ে ঐক্যমতে পৌঁছেছেন, তবে বাণিজ্যের ক্ষেত্রে ট্রাম্প খালি হাতেই ফিরেছেন, এক্ষেত্রে ট্রাম্প অ্যাবেকে ‘কঠোর চুক্তিকারক’ বলতেই পারেন। সূত্র: ব্লুমবার্গ, ফিনেন্সিয়াল টাইমস।