প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সৌদি আরবে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা
তেহরানের বিরুদ্ধে রিয়াদের অভিযোগ অযৌক্তিক ও উস্কানিমূলক

আবু সাইদ: সৌদি আরবের রাজধানী রিয়াদের উত্তরে ইয়ামেনের হুতি বিদ্রোহিদের ছোড়া ক্ষেপণাস্ত্রটি ইরানের তৈরি বলে রিয়াদ দাবি করলেও তেহরান তা প্রত্যাখান করেছে।  ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বাহরাম কাসেমি সোমবার এক বিবৃতিতে তেহরানের বিরুদ্ধে রিয়াদের এই দাবীকে অযৌক্তিক এবং উস্কানিমূলক বলে বর্ণনা করেছেন। তিনি বলেন, কিং খালিদ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের উদ্দেশে যে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা হয়েছে এটা সৌদি আগ্রাসনের বিরুদ্ধে ইয়ামেনের হুতি বিদ্রোহিদের নিজস্ব প্রতিক্রিয়া। এরজন্য অন্যকাউকে উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে দায়ি করা যায় না। এধরনের বানোয়াট অভিযোগের কারণে পরিস্থিতি আরো জটিল হয়ে উঠছে।

সৌদি আরবের নেতৃত্বে পরিচালিত যৌথ বাহিনীর মুখপাত্র তুর্ক আল মালিকি সোমবার এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, হুথি বিদ্রোহীরা যে ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবহার করেছে সেটি ইরানের তৈরি। ইয়েমেনের সেনাবাহিনী এ ধরনের অস্ত্র উৎপাদন করতে পারে না।এর আগে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল ট্রাম্পও এ হামলার জন্য ইরানকে দায়ী করেছেন।

সংবাদ সম্মেলনে মালিকি ‘ভলকানো-১’ ও ‘ভলকানো-২’ ক্ষেপণাস্ত্রের দুটি ছবি দেখিয়ে বলেন, ইয়েমেনে ক্ষেপণাস্ত্রের চোরাচালান ঢুকছে এটি পরিষ্কার বোঝা যাচ্ছে। হুথিরা সৌদি আরবের সীমান্তের ৫০ হাজার মাইন পুঁতে রাখার জন্য পরিকল্পনা করছে বলেও তিনি অভিযোগ করেন।

এর আগে শনিবার সৌদি আরবের কিং খালিদ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায় ইয়েমেনের হুথি বিদ্রোহীরা।তবে ক্ষেপণাস্ত্র বিধ্বংসী প্রযুক্তি ব্যবহার করে বিমানবন্দরের বাইরে সেটি বিধ্বস্ত করে সৌদি নিরাপত্তা বাহিনী। ফলে এ হামলায় কোনো ধরনের হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।

হামলার পরপরই এর দায় স্বীকার করেছে ইয়েমেনের হুথি বিদ্রোহীরা। হুথিদের এক মুখপাত্র সংবাদমাধ্যম আলজাজিরাকে বলেন, ‘৮০০ কিলোমিটার পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র হামলা করা হয়। কারণ সৌদি সরকার আমাদের নিরীহ মানুষকে হত্যা করছে। তাই তারা আমাদের ক্ষেপণাস্ত্র থেকে রক্ষা পাবে না’।

উল্লেখ্য, ইয়েমেনের হুথি বিদ্রোহীদের দমনের জন্য ২০১৫ সালে সৌদি আরবের নেতৃত্বে বিমান হামলা শুরু হয়। কয়েক মাস আগে এ অভিযান শেষ করে সৌদি আরব।

সৌদি আরবের হামলায় ইয়েমেনে প্রায় ১০ হাজার মানুষ মারা যান এবং আহত হন ৪০ হাজার। সর্বশেষ জাতিসংঘের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ইয়েমেনে হামলায় বিধ্বস্ত এলাকায় কয়েক লাখ মানুষ কলেরায় আক্রান্ত হয়েছে। সূত্র: বিবিসি, আল জাজিরা।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ