প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মা-ছেলে হত্যা
মূল আসামি জনি ৬ দিনের রিমান্ডে

আদালত প্রতিবেদক : রাজধানীর কাকরাইলে মা ও ছেলেকে হত্যার ঘটনায় গ্রেফতার মূল আসামি আল আমিন ওরফে জনির ছয়দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

শুনানি শেষে রোববার ঢাকা মহানগর হাকিম মোহা : আহসান হাবীব রিমান্ডের আদেশ দেন ।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা রমনা থানার ইন্সপেক্টর (নিরস্ত্র) আলী হোসেন আসামি জনিকে আদালতে হাজির করেন। মামলার সুষ্ঠু তদন্তসহ এমন চাঞ্চল্যকর ও নৃশংস খুনের মুল রহস্য উদঘাটন, অজ্ঞাতনামা আসামিদের নাম-ঠিকানা সংগ্রহসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা পূর্বক গ্রেপ্তার করার লক্ষ্যে তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দশদিনের রিমান্ড মঞ্জুরের আবেদন করেন তদন্ত কর্মকর্তা।

রাষ্ট্রপক্ষে মো : হেমায়েত উদ্দিন খান (হিরণ) রিমান্ড মঞ্জুরের পক্ষে শুনানি করেন। তিনি বলেন, এটা একটা নিষ্ঠুর, নির্মম নৃশংস হত্যাকান্ড। তাদেরকে ঠান্ডা মাথায় খুন করা হয়। এটা একটা ন্যাক্কারজনক কাজ। যার মূল পরিকল্পনাকারী এই জনি। তাকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করলে বিভিন্নস্থানে যারা পলাতক রয়েছে তাদের গ্রেফতার করা সম্ভব। এজন্য তদন্ত কর্মকর্তা তার দশদিনের রিমান্ড চেয়ে। আমরা তার দশদিনের রিমান্ড মঞ্জুরের প্রার্থণা করছি। তবে জনির পক্ষে কোন আইনজীবী ছিলেন না।উভয়পক্ষের শুনানি শেষে আদালত জনির ছয়দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

গত শুক্রবার দিবাগত রাত ৩টায় গোপালগঞ্জ থেকে জনিকে গ্রেফতার করে র‌্যাব-৩।

উল্লেখ্য, গত ১ নভেম্বর কাকরাইলের পাইওনিয়র গলির ৭৯/১ নম্বর বাসার গৃহকর্তা আবদুল করিমের প্রথম স্ত্রী শামসুন্নাহার করিম (৪৬) ও তার ছেলে শাওনকে (১৯) গলা কেটে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। ঘটনার পরদিন রাতে নিহত শামসুন্নাহারের ভাই আশরাফ আলী বাদী হয়ে রমনা থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলায় শামসুন্নাহার করিমের স্বামী আব্দুল করিম, করিমের তৃতীয় স্ত্রী শারমিন আক্তার মুক্তা, মুক্তার ভাই জনিসহ অজ্ঞাত কয়েকজনকে আসামি করা হয়। গত ৩ নভেম্বর তাদের ছয়দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।