প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

এশিয়া সফরের শুরুতে বন্ধুদেশ জাপানে ট্রাম্প-মেলানিয়া

লিহান লিমা : সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট জর্জ ডবিøউ বুশের পর বিগত ২৫ বছরের ইতিহাসে এই প্রথম কোন মার্কিন প্রেসিডেন্ট হিসেবে ১২ দিনের এশিয়া সফরে যাত্রা শুরু করেছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। ট্রাম্পের এই সফরকে ‘ম্যারাথন ট্যুর’ বলে উল্লেখ করেছে সিএনএন।

এর প্রতিবেদনে বলা হয়, এশিয়া সফরে ট্রাম্প দক্ষিণ কোরিয়া ও জাপানের সঙ্গে উত্তর কোরিয়ার পারমাণবিক ক্ষেপণাস্ত্র ইস্যুতে একটি ঐক্যজোট গড়ার আশা করছেন, চীনকেও পিয়ংইয়ংয়ের সঙ্গে কঠোর পথ অবলম্বনের জন্য চাপ প্রয়োগ করছে ওয়াশিংটন।

এশিয়া সফর শুরুর আগে ফার্স্ট লেডি মেলানিয়া ট্রাম্পকে নিয়ে হাওয়াই দ্বীপপুঞ্জের পার্ল হারবারে অবস্থিত দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে নিহত মার্কিন সৈন্যদের স্মৃতিসৌধ ‘ইউএসএস আরিজোনা মেমোরিয়াল’ পরিদর্শন করেন ট্রাম্প-মেলানিয়া। সাদা ফুল দিয়ে নিহত সৈনিকদের শ্রদ্ধা জানান তারা।
রয়টার্স জানায়, এরপর মিত্র দেশ জাপানের মাটিতে পা রাখেন তারা। জাপান সফরের এক ফাঁকে প্রধানমন্ত্রী শিনজো অ্যাবের সঙ্গে গল্ফ ক‚টনীতি চালাবেন ট্রাম্প। গল্ফ ক্লাবে ক্রীড়ায় মেতে উঠবেন দুই রাষ্ট্রপ্রধান। অ্যাবের সঙ্গে দুপুরের খাবারের পর জাপানের আকাসাকা প্রাসাদে জাপানের রাজপরিবারের সঙ্গে সাক্ষাত করবেন ট্রাম্প-মেলানিয়া। এছাড়া উত্তর কোরিয়াতে অপহৃত হওয়া জাপানি নাগরিকদের পরিবারের সঙ্গে সাক্ষাত করবেন ট্রাম্প-অ্যাবে। দ্য ওয়াশিংটন পোস্টের খবরে বলা হয়, ৪৮ ঘণ্টার এই সফরে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে ট্রাম্প অ্যাবের সঙ্গে তার ব্যক্তিগত উষ্ণতা ঝালাই করে নিবেন।

দুই দিনের টোকিও সফর শেষে একে একে দক্ষিণ কোরিয়া, চীন, ভিয়েতনাম এবং ফিলিপাইন সফর করবেন ট্রাম্প। তবে ট্রাম্পের দ্বিতীয় সফর বেশ সুখকর হবে না। কারণ এরপর ট্রাম্পের সফরসূচীতে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের কৌশলগত মিত্র দেশ দক্ষিণ কোরিয়া। বলাবাহুল্য, ১ দিনের সিউল সফরে উত্তর কোরিয়া নিয়ে বেশ মাথা ঘামাবেন ট্রাম্প। কোরিয়ার জাতীয় সংসদেও ভাষণ দিবেন তিনি। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ‘এই দিনটি দক্ষিণ কোরিয়ার নেতাদের অভ্যন্তরীণ পরিকল্পনার দীর্ঘশ্বাসের দিন হবে। কারণ অ্যাবে ইতোমধ্যে জানিয়েছেন দক্ষিণ কোরিয়া ইস্যুতে ট্রাম্প কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণে বিশ্বাসী, অ্যাবেও ট্রাম্পের সঙ্গে সহমত পোষণ করেন।’ অন্যদিকে উত্তর কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুন জে ইন পিয়ংইয়ংয়ের সঙ্গে উদার ক‚টনৈতিক সম্পর্কের মাধ্যমে সংকট মোকাবেলায় আগ্রহী। এমনকি দক্ষিণ কোরিয়া প্রশাসন কোরিয় উপদ্বীপে যুক্তরাষ্ট্রের ক্ষেপণাস্ত্র বিরোধী স্টেশন বসানোর পরিকল্পনারও বিরোধীতা করেছে। ট্রাম্পও তোষামোদের এই সফর নিয়ে কিছুটা তিক্তবিরক্ত। অন্যদিকে দক্ষিণ কোরিয়াও তাদের দুই সাবেক ঘনিষ্ঠ মিত্র জাপান ও ওয়াশিংটনের সঙ্গে সম্পর্ক নিয়ে উদ্বিগ্ন।

ভোক্স অনলাইনের খবরে বলা হয়, বুধবার ট্রাম্প চীন সফর করবেন, চীন ইতোমধ্যেই ট্রাম্পকে রাজকীয় সংবর্ধনা দেয়ার পরিকল্পনা করে রেখেছে। বিশেষ সামরিক সম্মান প্রদর্শন ও আনুষ্ঠানিকতার মধ্য দিয়ে মহা-সমারোহে স্বাগত জানানো হবে ট্রাম্পকে। দক্ষিণ কোরিয়া ও দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য ইস্যুতে চীন ট্রাম্পের সঙ্গে সমঝোতা করার চেষ্টা করবে।

শুক্রবার ট্রাম্প ‘এশিয়া প্রশান্ত মহাসাগরীয় অর্থনৈতিক অঞ্চল-অ্যাপেক সম্মেলনে যোগ দিতে ভিয়েতনাম সফরে যাবেন। ২১টি দেশের এই সংস্থা এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে মুক্ত বাণিজ্য নিয়ে আলোচনা করবে।

১২ নভেম্বর, রোববার ফিলিপাইন সফরের মধ্য দিয়ে এশিয়া সফরের ইতি টানবেন ট্রাম্প। দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোর সংস্থা- আসিয়ানের পঞ্চাশতম জন্মদিনে ২১ দেশের নেতাদের সঙ্গে রাতের খাবার খাবেন ট্রাম্প। বৈঠক করবেন প্রেসিডেন্ট রদ্রিগো দুর্তেতের সঙ্গে। সিএনএন, ডেইলি মেইল, বিবিসি

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ