প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

‘ইউনেস্কো ৭ই মার্চের ভাষনকে ঐতিহাসিক স্বীকৃতি তরুণ প্রজন্মকে উজ্জীবিত করবে’

একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সভাপতি শাহরিয়ার কবির বলেন, ১৯৭২ সালে আমরা সকল সেক্টরস কমান্ডার, ফোর্সেস কমান্ডারদের সকলের ভাষণ লিপিবদ্ধ করবো। সেসময়ে জিয়াউর রহমান অসাধারণ একটা লেখা লেখেছিল ‘একটা জাতির জন্ম’। সেখানে লেখেছিল ৭ই মার্চ বঙ্গবন্ধুর ভাষনকে আমরা গ্রীণ সংকেত ভেবে সামরিক বাহিণীর মধ্যে কাজ শুরু করি।

সময় টেলিভিশনের নিয়মিত অনুষ্ঠান ‘সম্পাদকীয়’তে তিনি একথা বলেন।

শাহরিয়ার কবির বলেন, ৭ই মার্চের ভাষণ নিয়ে কথা বলার আগে আমি বলব, গত সপ্তাহে ভারতে একটা সেমিনারে গান্ধী জী’র একটা ভাষণ নিয়ে আলোচনা করতে গিয়ে আমি সমকালীন পুরো বিষয়টা নিয়ে কথা বলেছি। রাজনীতির ইতিহাসে যে পাঁচটি ভাষণকে সবচেয়ে গুরুত্ব দেওয়া হয়। যে ভাষন ইতিহাস সৃষ্টি করেছে। যে ভাষনের উপরে একটি জাতিকে ঐক্যবদ্ধ, নতুন বিপ্লবের ডাক দিয়েছে। ৭ই মার্চ বঙ্গবন্ধুর ভাষনটি শুধু ইতিহাস সৃষ্টি করেনি। একটা ভূগোলও সৃষ্টি করেছে। যার মাধ্যমে জাতি আশার প্রতিফলন হয়েছে। ইতিহাস সৃষ্টিকারি ভাষন হিসেবে এটার নাম আন্তর্জাতিক মহলে অনেক আগেই এসেছে। সম্প্রতি ইউনেস্কোর দেওয়া স্বীকৃত এসেছে। এতে আমাদের তরুণ প্রজন্মকে উজীবিত করবে।

এক প্রশ্নের জবাবে শাহরিয়ার কবির বলেন, পাকিস্তানের হ্ইাকমিশন একটা ভিডিও’র মাধ্যমে তারা দেখিয়েছে বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতা চাননি। স্বায়ত্তশাসন চেয়েছিলেন আর স্বাধীনতার ঘোষণা জিয়াউর রহমান দিয়েছিল। এরকম ভাষ্য পাকিস্তানের অফিসিয়ালি হতে পারে না। এজন্য হতে পারে কারণ ১৯৭১ সালে বঙ্গবন্ধুকে গ্রেফতার করা সহ তাকে রাষ্ট্রদ্রোহিতার মামলায় ফাঁসি অবধারিত ছিল। কিন্তু তা পারেনি আন্তর্জাতিক চাপের কারণে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত