শিরোনাম

প্রকাশিত : ১৩ মে, ২০২২, ০১:৪৬ দুপুর
আপডেট : ১৩ মে, ২০২২, ০২:১০ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

আটলান্টা জুরি পুরস্কার পাওয়ার পর অস্কারের বাছাই পর্বে ‘মশারি’

মশারি

ইমরুল শাহেদ: তরুণ নির্মাতা নুহাশ হুমায়ুনের লোমহর্ষক স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র অস্কারের বাছাই করা চলচ্চিত্র উৎসব আটলান্টা ফিল্ম ফ্যাস্টিভ্যালে  পুরস্কৃত হওয়ার পর এখন অস্কারে যাচ্ছে বলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের মাধ্যমে জানান দিয়েছেন পরিচালক। ছবিটি পুরস্কৃত হয়েছে বর্ণনামূলক ছবি হিসেবে। 

‘মশারি’ ছবিটির প্রিমিয়ার এই ব্ছরেরই মার্চ মাসে - ২০২২ এসএক্সএসডব্লিউ উৎসবে হয়েছে। ২২ মিনিটের এই ছবিটিতে অভিনয় করেছেন ‘ন ডরাই’ খ্যাত অভিনেত্রী সুনেরা বিনতে কামাল এবং নুহাশের আত্মীয় নায়রা অনোরা সাইফ। 

ছবিটির অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে গল্পের যে সারাংশ তুলে ধরা হয়েছে তাতে বলা হয়েছে, ‘রক্ত পিপাসু প্রাণীদের ছোবল থেকে বাঁচার জন্য ঢাকার মানুষ মশারির ভিতরে রাত কাটায়। অজানা হুমকির এটাই হলো জানা প্রতিরোধ ব্যবস্থা। অপু ও নায়রা নামের দুই বোনকে এই অদ্ভূত নতুন পৃথিবীতে এভাবেই বেঁচে থাকতে হচ্ছে।’ তাদের দুই বোনের এমন আঁটসাঁট সম্পর্কের চাইতেও বাইরের জগতটা অনেক বেশি বিপজ্জনক। এক রাতে কৌতুহলবশতই অপু মশারির বাইরে নিরাপত্তা খোঁজে। কিন্তু এ সময় অপু ভিন্ন একটি উপলক্ষ্যে চলে যায়, যেমন তারা দুজনে মিলে ভূতকে মোকাবিলা করছেন। 

আটলান্টার জুরিরা বলেছেন, ‘মশারি একজনকে নিজ আসনের একটি সম্পূর্ণ বিস্ময়কর প্রান্তের একটি গল্প তৈরি করে, যা বিশ্বের সামাজিক-রাজনৈতিক বাস্তবতাকে একটি উজ্জ্বল অনন্য জগতে নিয়ে যায়।’ 

এ ছবি নির্মাণের নেপথ্যের কথা উল্লেখ করে নুহাশ পরিচালকের নোটে বলেছেন, ‘মশারিকে কেন্দ্র করে নিরাপত্তা ও শ্বাসরোধের মধ্যে একটা অদ্ভূত সম্পর্ক রয়েছে, সেটাই তুলে ধরার চেষ্টা করেছি। আরেক দিকে ভয়, আশ্চর্য এবং রহস্যের দিকটির প্রতিও আলোকপাত করা হয়েছে। বাংলাদেশের একটি শিশু অবিরাম মশারি নিয়ে খেলা করতে থাকে। লোকগাথায় এসব আবেগের গল্প আগে থেকেই আছে। কিন্তুচলচ্চিত্রে নেই - এখনো না।’ তিনি বলেন, প্রাথমিক এই আইডিয়াটিকে ক্রমশ পরিপুষ্ট করতে দশ বছর সময় লেগেছে। বাঙ্গালীদের ভয়ার্ততাকেই মূলত একটি পারিবারিক নাটকের মাধ্যমে বলার চেষ্টা করেছি আমি।’ আটলান্টার পুরস্কার ছাড়াও ‘মশারি’ মার্শে দ্যু ফিল্ম-ফ্যাস্টিভাল ডি কান এবং এসআইটিজিইএস ফ্যাস্টিভালের জন্য নির্বাচিত হয়েছে। সূত্র: ইউএনবি

  • সর্বশেষ