শিরোনাম
◈ প্রাইভেটকারের ওপর গার্ডার: ক্রেনের চালক ও ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মামলা ◈ গার্ডার চাপায় নিহতদের ময়নাতদন্ত হবে সোহরাওয়ার্দীর মর্গে ◈ উত্তরায় দুর্ঘটনা: শিশু জাকারিয়া জীবিত ছিল আধাঘণ্টা ◈ পুলিশের উদ্দেশ্যই ছিল ছাত্রলীগের ছেলেদের মারবে: এমপি শম্ভু ◈ রাজধানীতে ক্রেন থেকে রড পড়ে ৫ পথচারী আহত ◈ চকবাজার ও উত্তরার ঘটনায় শোক জানিয়ে তদন্তের দাবি ফখরুলের ◈ মানবাধিকারকর্মীদের কথা শুনলেন জাতিসংঘের মিশেল ব্যাচেলেট ◈ উত্তরায় ক্রেন দুর্ঘটনা: বেঁচে রইলেন শুধু নবদম্পতি ◈ খায়রুনকে লাথি মেরে সেই রাতে বাইরে যান স্বামী ◈ উত্তরায় প্রাইভেট কারের উপর ফ্লাইওভারের গার্ডার, নিহত ৫ (ভিডিও)

প্রকাশিত : ০১ আগস্ট, ২০২২, ০৭:১৩ বিকাল
আপডেট : ০৭ আগস্ট, ২০২২, ১২:০২ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

স্বামীর বয়স নিয়ে যা বললেন পূর্ণিমা

দিলারা হানিফ পূর্ণিমা

মিনহাজুল আবেদীন: গত ২৭ মে পারিবারিকভাবে বিয়ে করেন চিত্রনায়িকা পূর্ণিমা। স্বামী আশফাকুর রহমান ঢাকার একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত। বিয়ের ২ মাস পর ২১ জুলাই সন্ধ্যায় চিত্রনায়িকা নিজেই বিয়ের খবরটি জানান সবাইকে। 

দুজনের পরিচয়, বিয়ে, দেরি করে বিয়ের খবর জানানোসহ নানা বিষয়ে এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন। 

কেমন আছেন? নতুন সংসার কেমন চলছে?

সবকিছু মিলে ভালো আছি। সংসারও ভালো যাচ্ছে। আপাতত আমি মায়ের বাসায় আছি। 

আপনার এখন নতুন জীবন। নিজের কাছে একটু অন্য রকম লাগছে কি?

বিয়ে করেছি, কিছুটা তো অন্য রকম লাগবেই। নতুন করে সবকিছু ভাবতে হচ্ছে, গোছাতে হচ্ছে। তবে আমি বলবো না যে আমার সবকিছুর সঙ্গে মানিয়ে নিতে হচ্ছে বা মানিয়ে নিচ্ছি। বিয়ের পর মনে হচ্ছিলো, সবকিছুই প্রস্তুত ছিলো। আর সবাই ব্যাপারটাকে ভালোভাবেই গ্রহণ করেছেন। নতুন বউ হিসেবে হয়তো আমি নতুন। কিন্তু আমাদের দুজনের আন্তরিকতা আর বোঝাপড়ার জায়গা দেখে মনে হয়েছে, বিষয়টি গোছানোই ছিলো, সবাই সব জানতো।

কাজের সূত্রে আপনাদের পরিচয়। কিন্তু দুজন যে বিয়ে করে সংসারী হবেন, সেই ভাবনা কখন এলো?

আমাদের দুজনের পরিচয় অনেক দিনের। রবিন দীর্ঘদিন ধরে একটি কোম্পানির উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা হিসেবে কাজ করে আসছেন। আমি বিনোদন অঙ্গনের মানুষ। সেই সুবাদে তাদের পণ্যের ব্র্যান্ডিংয়ের জন্য দেশের নানা প্রান্তে আমরা অনেকেই একসঙ্গে যাওয়া-আসা করেছি। এভাবেই তার সঙ্গে পরিচয়। কাজের সুবাদেই নিজেদের বোঝাপড়ার জায়গাটা তৈরি হয় একসময়। এরপর এক বছর আগে সিদ্ধান্ত নিই, আমরা একসঙ্গে থাকতে পারি। তবে আমাদের বিয়েটা আরো পরে করার কথা ছিলো।

কখন?

আগামী ডিসেম্বর মাসে। কারণ, মনে হয়েছিলো আরেকটু নিজেরা নিজেদের দেখি, বুঝি ও জানি। এজন্য একটু প্রস্তুতি নিয়ে বিয়ে করার কথা ছিলো, কিন্তু পারিবারিক চাপে তা হলো না।

বিয়েতে দুই পরিবারের সবাই অনেক খুশি জানিয়ে পূর্ণিমা বলেন, ‘দুই পরিবারের ইচ্ছাতেই তো বিয়েটা হলো, সবাই খুশি। আমার মেয়েসহ সবাইকে শ্বশুরবাড়ির লোকজন গ্রহণ করে নিয়েছেন, খুবই আদর করছেন। আমার মাও সবাইকে সুন্দরভাবে গ্রহণ করে নিয়েছেন।’

স্বামীর কোন বিষয়টি দেখে আপনার ভালো লেগেছে?

তার ব্যবহার, আন্তরিকতা, অনেক যত্নশীল এসব বিষয় বেশি ভালো লাগে। সবচেয়ে বড় ব্যাপার, আমার মেয়ের প্রতি তার আবেগ বেশি, যা আমাকে দারুণভাবে আকর্ষণ করে। একটা মেয়ে যখন বাচ্চাসহ আবার বিয়ে করে, তখন মেয়েটি তার সঙ্গে কী হবে, সেটা নিয়ে ভাবে না। তার বাচ্চার সঙ্গে স্বামীর ব্যবহার কেমন হবে, সেটা নিয়েই চিন্তা করে বেশি। আমিও সেই চিন্তাই করেছি। কিন্তু তাকে দেখেছি, আমার চেয়ে আমার বাচ্চাকে বেশি আগলে রাখে, বাচ্চা নিয়ে তার এক্সাইটমেন্ট বেশি, যা আমাকে দারুণভাবে আলোড়িত করে। বাচ্চাকে খুব আদর করেন। তাছাড়া আমার শ্বশুর-শাশুড়িসহ বাসার সবাই বাচ্চা ভালোবাসেন।

কখন মনে হয়েছিলো, বিয়েটা করে ফেলি!

এক বছর আগে সিদ্ধান্ত হয়। আমাদের পছন্দের ব্যাপারটা দুই পরিবার জানার পর বিয়েটা হয়ে গেলো। গত রোজার মধ্যেই দুই পরিবার আমাদের সম্পর্কের বিষয়টি জানতে পারে। দুই পরিবারের দুই বোনকে প্রথমে আমরা জানাই। এরপর তারা পরিবারের কর্তাদের জানান। রোজার মধ্যে আমাদের দুজনের দুজনার বাসায় যাওয়া-আসা হয়। এরপর দুই পরিবার থেকে বলা হলো, ‘দেরি কোরো না, বিয়ে করে ফেলো।’ ১৫-২০ দিনের প্রস্তুতিতে বিয়েটা হয়েছে।

দুই মাস দেরি করে বিয়ে খবর জানালেন কেন?

আমার আম্মা হাসপাতালে ছিলেন। তাছাড়া ভাইরাস জ্বরে দুই পরিবারের সবাই আক্রান্ত ছিলো। সবকিছু মিলিয়ে বলার মতো পর্যায়ে ছিলো না। তাছাড়া বিয়ের সময় দুই পরিবারের অনেক আত্মীয়স্বজনকে জানানো হয়নি। এ কারণে একটু প্রস্তুত নিয়ে খবরটি আগামী ডিসেম্বর মাসে জানানোর কথা ভাবা হচ্ছিলো।

কবে, কোন সময় মন দেয়া-নেওয়ার ঘটনা ঘটেছিলো?

মন দেয়া-নেওয়ার নির্দিষ্ট কোনো সময়ের কথা মনে নেই। এ সব কি আর মনে থাকে? কাজ করতে গিয়ে দেখা, পরিচয়, তারপর কথাবার্তা। ওখান থেকেই ভালো লাগা। শেষ। আর কিছু বলবো না।

আপনি বিনোদন অঙ্গনে কাজ করেন। আপনার স্বামী ঢাকার একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত। দুই ভুবনের দুজন। সামনের দিনগুলো অনেকটাই মানিয়ে চলতে হবে কি?

আমি তার কাজ দেখেছি। তার সম্পর্কে আমার জানা আছে। সুতরাং জেনেবুঝেই তো আমরা বিয়ে করেছি। আমি আউটডোরে শুটিংয়ে থাকছি, তিনি সকাল থেকে রাত পর্যন্ত অফিসে থাকছেন। এসব বিষয় আমাদের দুজনের একে অপরের জানা। ফলে মানিয়ে চলার কিছু নেই এখানে।

আপনার স্বামী যে বয়সে ছোট, এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে নানাজন নানা কথাও বলছেন। কীভাবে দেখছেন?

এ বিষয়ে আগে থেকে প্রস্তুতি ছিলাম আমি। জানতাম, বিয়ের পর স্বামীর বয়স নিয়ে কথা উঠবে। যারা এসব লেখেন, না লিখতে পারলে ভালো থাকবেন না তারা। না লিখতে পারলে তাদের মন খিটখিট করবে। আমাকে দুই-তিনটা গালি দিতে না পারলে উল্টা পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে ঝগড়াঝাটি করবেন তারা। আমাকে নিয়ে এভাবে গালাগালি করে যদি তাদের শান্তি লাগে, আমি খুশি। আমার ছবি নিয়ে পোস্ট করে দু-চারটা গালি দিক, আমার কোনো সমস্যা নেই। তবু তারা শান্তিতে থাক, সুখে থাক, সুস্থ থাক। তাদের জন্য আমাদের দুজনের পক্ষ থেকে শুভকামনা। এ ব্যাপারে আর কিছু বলতে চাই না।

হানিমুনে কবে যাচ্ছেন?

যাবো, তবে এখনই নয়। আম্মা তো এখনো পুরোপুরি সুস্থ হননি। বাসায় আছেন। এই অবস্থায় এখনই কোথাও ঘুরতে যাচ্ছি না। সবকিছু স্বাভাবিক হলে সময় করে আশপাশের কোনো দেশে ঘুরতে যাওয়ার ইচ্ছা আছে। সেটা থাইল্যান্ড হতে পারে। প্রথম আলো 

  • সর্বশেষ