শিরোনাম

প্রকাশিত : ২৫ মে, ২০২২, ১০:১৭ দুপুর
আপডেট : ২৫ মে, ২০২২, ১১:২৯ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

প্রেমিকাকে ভিডিও কলে রেখে প্রেমিকের আত্মহত্যা

ফজলে রাব্বি সোলাইমান

সোহেল রানা ডালিম, চুয়াডাঙ্গা: [২] চুয়াডাঙ্গা পৌর এলাকায় প্রেমিকাকে ভিডিও কলে রেখে ফজলে রাব্বি সোলাইমান (২৪) নামে এক যুবক ফাঁস নিয়ে আত্মহত্যা করেছেন। বুধবার (২৫) মে) রাত ২টার দিকে পৌর এলাকার চক্ষু হাসপাতালপাড়ায় ভাড়া বাড়িতে  এ ঘটনা ঘটে।

[৩] ফজলে রাব্বি চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার বোয়ালমারি গ্রামের টুলু মিয়ার ছেলে। তিনি ভাইদের মধ্যে সবথেকে ছোট ছিলেন। তিনি চুয়াডাঙ্গা সরকারি কলেজের অনার্স তৃতীয় বর্ষের ছাত্র ছিলেন। পাশাপাশি বেসরকারি স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্র সনো সেন্টারে এক্সরে বিভাগে কর্মরত ছিলেন।

[৪] পরিবারের সদস্যরা জানায়, রাত ২টার দিকে অজ্ঞাত এক নারী আমাদের ফোন করে জানায় রাব্বি ফাঁস দিয়েছে, তাড়াতাড়ি তার ঘরে যান। আমরা গিয়ে দেখি দরজা বন্ধ। প্রতিবেশীদের সহযোগিতায় দরজা ভেঙে রাব্বিকে উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। পরে জানতে পারি, প্রেমিকার সঙ্গে মনোমালিন্যের কারণে ভিডিও কলে আত্মহত্যা করে রাব্বি।

[৫] স্থানীয়রা জানায়, রাব্বি পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়তেন ও খুব ধার্মিক প্রকৃতির ছেলে ছিল। সপ্তাহে দুদিন রোজা রাখত। আজ মঙ্গলবারও রোজা রেখেছিল। আমরা আগে কখনো শুনিনি কোনো মেয়ের সঙ্গে তার সম্পর্ক আছে।

[৬] চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. সোহরাব হোসেন বলেন, রাত ২টার দিকে ফজলে রাব্বি নামে ওই যুববকে হাসপাতালে নিয়ে আসে পরিবারের সদস্যরা। পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর তাকে মৃত ঘোষণা করা হয়। হাসপাতালে আসার আগেই তার মৃত্যু হয়। মরদেহ হিমঘরে রাখা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট থানায় জানানো হবে।

[৭] সদর থানা পুলিশ সূত্র জানায়, প্রেমিকার সঙ্গে কলেজছাত্র ফজলে রাব্বি সোলাইমানের মনোমালিন্য এ ঘটনার সূত্র ধরে রাত ২টার দিকে ফজলে রাব্বি প্রেমিকাকে ভিডিও কলে রেখে ঘরের আড়ায় দড়ি দিয়ে গলায় ফাঁস দেন। পরে কলেজছাত্রের পরিবার বিষয়টি টের পেয়ে ঘরের দরজা ভেঙে স্থানীয়দের সহায়তায় তাকে উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নেয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. সোহরাব হোসেন তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

[৮] চুয়াডাঙ্গা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহাসিন বলেন, কলেজছাত্রের মরদেহ মর্গে রাখা আছে। আইনগত প্রক্রিয়া মেনে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এখনো কোনো মামলা হয়নি। সম্পাদনা: হ্যাপি

  • সর্বশেষ