শিরোনাম

প্রকাশিত : ২৪ মে, ২০২২, ১২:৫৮ দুপুর
আপডেট : ২৪ মে, ২০২২, ০১:০৮ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

পটিয়ায় বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল পোড়ানো ও খুনের মামলায় অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারের দাবি

রিয়াজুর রহমান :  [২] চট্টগ্রামের পটিয়া উপজেলার ৮ নং কাশিয়াইশ ইউনিয়নে স্থাপিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ম্যুরাল পোড়ানো এবং একটি খুনের মামলায় অভিযুক্তদের গ্রেফতার ও শাস্তির দাবি করেছেন এলাকার চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আবুল কাশেম। 

[৩] সোমবার চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের এস রহমান হলে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এলাকার বাসির পক্ষে এ দাবি জানান তিনি। 

[৪] সংবাদ সম্মেলনে চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আবুল কাশেম বলেন , গত ১৮ মে রাত আনুমানিক ১০-৪৫ মিনিটে ৮ নং কালিয়াইশ  ইউনিয়নের মো. কাইছ, পিতা-হাজী ইউছুফ সওদাগর, সাং-বুধপুরা (কালু মেম্বারবাড়ি)-এর নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী অত্র এলাকায় স্থাপিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ম্যুরালটিতে অগ্নিসংযোগ করে পুড়ে ফেলে এবং উল্লাসে মেতে ওঠে ।  

[৫] চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আবুল কাশেম এ সময়ে ঘটনার বর্ণণা দিয়ে বলেন, মো. কাইছ বিগত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে তার প্রতিদ্বন্দ্বি ছিলেন এবং নির্বাচনে তার ব্যাপক জনপ্রিয়তা ও বিপুল জয়ে ঈর্ষান্বিত হয়ে  তাকে  সমাজে অপদস্থ ও হেয় প্রতিপণ করার উদ্দেশ্যে একটির পর একটি প্রতিহিংসামূলক কর্মকান্ড পরিচালনা করেন। 

[৬] সংবাদ সম্মেলনে মোহাম্মদ আবুল কাশেম অভিযোগ করেন,  মো. কাইছ তার প্রতি বিদ্বেষ, ক্ষোভ এবং প্রতিহিংসাবশত গত ২২ এপ্রিল রাতে একদল সমাজবিরোধী সন্ত্রাসীদের নিয়ে  অত্যন্ত অমানবিক ও পৈশাচিকভাবে তার ছোট ভাই এ বি এম  সোহেল চৌধুরীকে হত্যা করে। যা পরদিনের সব ইলেকট্রনিক মিডিয়া ও পত্র পত্রিকায় সবিস্তারে উঠে আসে।

[৭] তিনি আরো অভিযোগ করে বলেন, মো. কাইছ গংরা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ম্যুরাল পোড়ানোসহ তাদের এসব খুনখারাবি, সন্ত্রাসের বিষয় ধামাচাপা দেয়ার জন্যে গত ২১ মে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে মিলনায়তনে একটি সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে তার নামে কাল্পনিক, অসত্য ও উদ্দেশ্য প্রণোদিত তথ্য প্রকাশ করে। 

[৮] এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় গত (২৩ এপ্রিল) মো. কাইছকে প্রধান আসামি করে কাইছ গংদের বিরুদ্ধে পটিয়া থানায় মামলা করা হয়েছে।  

[৯] অপরদিকে অন্য একটি সংবাদ সম্মেলনে মো. কাইছ নিজেকে নির্দোষ প্রমাণ করার জন্যে নানা অসংলগ্ন এবং মনগড়া তথ্য প্রকাশ করেছেন বলেও সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়।

[১০] মো. আবুল তার বক্তব্যে বলেন, মো. কাইছ তার ওই সংবাদ সম্মেলনে একই সঙ্গে স্থানীয় প্রশাসন এবং সংশ্লিষ্ট আইন প্রয়োগকারী সংস্থার কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্য  করে তাদের  কার্যকলাপ সম্পর্কেও মানহানিকর, অমর্যাদাকর বক্তব্য উপস্থাপন করার ধৃষ্টতা দেখিয়েছেন।
 
[১১] পটিয়া উপজেলার ৮ নং কাশিয়াইশ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. আবুল কাশেম সংবাদ সম্মেলনে সরকার ও সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করে জাতির পিতার ম্যুরাল পোড়ানোর সঙ্গে যুক্ত এসব রাষ্ট্র ও সমাজ বিরোধীদের অপতৎপরতা বন্ধে এবং তার ভাইয়ের হত্যাকন্ডে অভিযুক্ত খুনি চক্রকে অবিলম্বে গ্রেফতার ও দ্রুত বিচার কার্যকরের মাধ্যমে আইনগত পদেক্ষেপ গ্রহণের আবেদন জানান।

  • সর্বশেষ