শিরোনাম

প্রকাশিত : ১৪ মে, ২০২২, ১১:৪২ দুপুর
আপডেট : ১৪ মে, ২০২২, ০৮:২৪ রাত

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

গোপালগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় একই প‌রিবারের ৩ জনসহ নিহত ৯

এস এম সাব্বির, সাবেত আহমেদ : গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীতে বাস-প্রাইভেটকার ও মোটর সাইকেলের ত্রিমুখী সংঘর্ষে একই প‌রিবারের তিন জনসহ ৯জন নিহত হয়েছেন। এতে আহত হয়েছে আরো ২৫ জন। তাদের মধ্যে ১২জন সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধিন রয়েছে। বাকী ১০জনকে প্রাথমিক চিকিৎসার পর ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। 

[৩] শ‌নিবার ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের দক্ষিণ ফুকরা এলাকায় এ মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘনাটি ঘটে। খরব পেয়ে জেলা প্র্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। নিহতদের খবরে স্বজনদের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। দুর্ঘটনার পর ঢাকা-খুলনা সহাসড়কে প্রায় এক ঘণ্টা যান চলাচল বন্ধ থাকে।

[৪] নিহতদের মধ্যে সকালে প্রাইভেটকারে করে বারডেম হাসপাতালের ডাক্তার বাসুদেব সাহা স্ত্রী (৫৫) তার স্ত্রী শিবানী সাহা (৪৫) তাদের ছেলে আহসানউল্লাহ বিশ্ববিদ্যালয়ের ইণ্জিনিয়ারিংএ অধ্যয়ণরত  স্বপ্নিল সাহা (২০)কে নিয়ে ঢাকা থেকে গোপাগলগঞ্জ শহরে আসছিলেন তার অসুস্থ মা শিখারানী সাহাকে দেখতে। পথিমধ্যে সকাল ১১টার দিকে দুর্ঘটনাস্থলে পৌঁছলে বরগুনার পাথরঘাটা থেকে ঢাকাগামী রা‌জিব প‌রিবহনের এক‌টি যাত্রীবাহী বাস অপর একটি মোটর সাইকেলকে সাইড দিতে গেলে প্রাইভেটকারের সা‌থে ত্রিমুখী সংঘর্ষ হয়। এসময় প্রাইভেটকারটি দূমড়ে-মুচড়ে মহাসড়কের পাশে ধান মাড়াইরত মে‌শিনের ওপর ছিটকে পড়ে এবং যাত্রীবাহী বাসটি গাছের সাথে ধাক্কা খেয়ে সড়কের উপর উল্টে পড়ে। ফলে প্রাইভেটকারে থাকা ডাক্তার বাসুদবে সাহা, তার স্ত্রী ও ছেলে এবং চালক মোঃ আজিজুল ইসলাম (৫৩) নিহত হন। সেসময়ে মোটরসাইকেলে থাকা প্রেমিক যুগল অনিক মোল্যা (২৯) প্রেমিকা আফসান মীম (২০), বাসের যাত্রী আলতাফ হোসেন খান(৫০), ধান মাড়াইরত ফিরোজ মোল্যা (৫০), তার স্ত্রী রুমা বেগম (৪৫) নিহত হন। 

[৫] কাশিয়ানীর ভাটিয়াপাড়া হাইওয়ে পুলিশের ‍এসআই সিরাজুল ইসলাম ও এটিএসআই গৌতম কুমার জানান, নিহতের মধ্যে ডাক্তার বাসুদেব ও তার পরিবার গোপালগঞ্জ শহরের বটতলা এলাকায় বাড়ি। তিনি সাবেক কাউন্সিলর প্রফুল্ল সাহার ছেলে। তাদের প্রাইভেটকারের চালকের বাড়ি ময়মনসিংহ জেলার গৌরিপুর থানার গোলাপপুর গ্রামের নুরুল ইসলামে ছেলে। ধান মারাইরত ফিরোজ মোল্যা কাশিয়ানী উপজেলার দক্ষিণ ফুকরা গ্রামের পিয়ার আলী মোল্যার ছেলে। মোটরসাইকেল আরোহী প্রেমিক অনিক মোল্যা দক্ষিণ ফুকরা গ্রামের জিন্দার মোল্যার ছেলে এবং প্রেমিকা আফসানা মীম একই উপজেলার খায়েরহাট গ্রামের ইয়ার আলী ফকিরের মেয়ে। বাসযাত্রী আলতাফ হোসেন খান বরগুনা জেলার পাথরঘাটা থানার চরদোয়ানী গ্রামের আব্দুর রশিদের ছেলে।

[৬] পুলিশের ওই দুই কর্মকর্তা আরো জানান, বিকেলে নিহত ৯ জনের পরিবারের আবেদনের প্রেক্ষিতে ময়নাতদন্ত ছাড়াই তাদের লাশ স্ব-স্ব পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এছাড়া দুর্ঘটনায় কবলিত  বাস, মোটরসাইকেল, প্রাইভেটকার ও ধান মাড়াই মেশিন উদ্ধার করে তাদের হেফাজতে রাথা হয়েছে বলে জানান তারা। দুর্ঘটনার পর সড়কের উপর বাসটি উল্টে থাকায় প্রায় ঘন্টাখানেক ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের ফুকরা এলাকায় যান চলাচল বন্ধ থাকে।

[৭] ঘটনাস্থলে পরিদর্শন করেন জেলা প্রশাসক শাহিদা সুলতানা। এসময় তিনি সাংবাদিকদের জানান, বার বার আইন-শৃঙ্খলা মিটিং এ সড়ক দুর্ঘটনার বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। কোনোমতেই সড়কে মৃত্যু থামানো যাচ্ছে না। এসময় নিহতদের পরিবারকে ১০হাজার টাকা এবং আহতদেরকে ৫হাজার টাকা করে দেয়ার কথা জানান তিনি।

[৮] গোপালগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের ‍উপ-পরিচালক আবুল কালাম আজাদ জানান, দুর্ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশের পাশাপাশি স্থানীয়দের সহায়তায় দ্রুত উদ্ধার কাজ শুরু করি। আহত ও নিহতের উদ্ধার করে গোপালগঞ্জ ২৫০-শয্যা বিশিস্ট জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সম্পাদনা : জেরিন 

  • সর্বশেষ