শিরোনাম

প্রকাশিত : ২৪ মে, ২০২২, ০২:৫১ দুপুর
আপডেট : ২৪ মে, ২০২২, ০৩:২১ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

৫২ শতাংশ রেমিটেন্স হ্রাস

হাইপারইনফ্লেশনে শ্রীলঙ্কা, এপ্রিলে রেকর্ড মূল্যস্ফীতি ৩৪

রাশিদ রিয়াজ : শ্রীলঙ্কায় জাতীয় ভোক্তা মূল্য ২০২১ সালের একই মাসের তুলনায় এপ্রিলে ৩৩.৮ শতাংশ বেড়েছে, মার্চ মাসে ২১.৫ শতাংশ থেকে আরো বৃদ্ধি পায়, কারণ ডলারের বিপরীতে রুপির দুর্বলতার প্রভাবগুলি ভোক্তা বাজার জুড়ে নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে, যার ফলে প্রয়োজনীয় জিনিসের দাম বহুগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। যা কয়েক সপ্তাহ আগে একই মাসের কলম্বো ভোক্তা মূল্যের ২৯.৮ শতাংশ বৃদ্ধির চেয়ে বেশি। ডেইলি মিরর অনলাইন

দেশটিতে এপ্রিল মাসে, উভয় সূচক, কলম্বো কনজিউমার প্রাইস ইনডেক্স এবং ন্যাশনাল কনজিউমার প্রাইস ইনডেক্স, তাদের সংকলন শুরু হওয়ার পর থেকে এখন পর্যন্ত তাদের সর্বোচ্চ মুদ্রাস্ফীতির পরিসংখ্যান রেকর্ড করেছে, যা ইঙ্গিত দেয় যে দেশটি একটি হাইপারইনফ্লেশন চক্রে প্রবেশ করেছে, যেহেতু রুপির মূল্য মার্কিন ডলারের তুলনায় ৮০ শতাংশ হারিয়েছে। দেশটির সেন্ট্রাল ব্যাঙ্কের গভর্নর ড. নন্দলাল ওয়েরাসিংহে গত সপ্তাহে বলেছিলেন মূল্যস্ফীতি ৪০ শতাংশের উপরে উঠতে পারে। যে মুদ্রাস্ফীতি ঘটছে তা তাদের মুদ্রানীতির সরঞ্জামের সুযোগের বাইরে, কারণ বর্তমানে দামের চাপের বেশিরভাগই সরবরাহের ওপর নির্ভরশীল। তবে মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে সুদের হার আরও বেশি বাড়ানো হবেন বলে তিনি আশ^াস দিয়েছেন। রুপির দুর্বলতার কারণে মূল্যস্ফীতি বাড়ছে। মাসিক খাদ্যমূল্যের পরিবর্তন গত মার্চে ১২.১ শতাংশ ছিল, যা ফেব্রুয়ারি তুলনায় আরো ২.৪ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। 

শ্রীলঙ্কায় ২০২২ সালের এপ্রিল থেকে ১২ মাসে খাদ্য বহির্ভূত মূল্যস্ফীতি ২৩.৯ শতাংশ রেকর্ড করা হয়েছে, মার্চ মাস পর্যন্ত ১৪.৫ শতাংশ থেকে তীব্রভাবে বৃদ্ধি ঘটেছে। এপ্রিল মাসে জ্বালানির দাম বেড়ে যাওয়ায় মূল্যস্ফীতি আরো বেড়ে যায়। যদিও মুদ্রাস্ফীতি শুধুমাত্র শ্রীলঙ্কার মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়, কারণ জাপানের মতো সর্বাধিক মুদ্রাস্ফীতি প্রতিরোধী দেশগুলি সহ প্রায় প্রতিটি দেশই কুৎসিত মূল্যের চাপের মুখোমুখি হয়, শ্রীলঙ্কার পরিস্থিতি আরও তীব্র এবং বেদনাদায়ক। 

এদিকে এপ্রিলে শ্রীলঙ্কায় রেমিট্যান্স আয় ৫২ শতাংশ কমেছে। এপ্রিলের রেমিট্যান্স আয় দাঁড়িয়েছে ২৪৯ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। অভিবাসী শ্রমিকরা উচ্চ হারের জন্য অনানুষ্ঠানিক চ্যানেলের মাধ্যমে অর্থ পাঠাচ্ছেন। অভিবাসী শ্রমিকদের হুন্ডির পরিপর্তে তাদের মাতৃভূমিকে গ্রাস করে এমন একটি গুরুতর অর্থনৈতিক বিপর্যয়ের সময়ে ব্যাংকিং চ্যানেলে অর্থ পাঠানোর অনুরোধ জানালেও খুব একটা কাজ হয়নি। তথ্যগুলি দেখায় যে এপ্রিল মাসে শ্রমিকদের রেমিট্যান্সগুলি তারা এক বছর আগে যা পাঠিয়েছিল তার একটি ভগ্নাংশ ছিল কারণ অতিরিক্ত লোভ তাদের বাধ্যবাধকতা অতিক্রম করেছে বলে মনে হচ্ছে যদি তারা সত্যিই তাদের দেশ এবং সহ নাগরিকদের যারা অনাহারের দ্বারপ্রান্তে রয়েছে তাদের সাহায্য করতে চান তাহলে তারা হুন্ডির বদলে ব্যাংকিং চ্যানেলকেই বেছে নিতে পারেন। কিন্তু অভিবাসীরা ২০২১ সালের একই মাসে প্রেরিত ৫১৮.৮ মিলিয়ন ডলারের তুলনায় গত এপ্রিল মাসে মাত্র ২৪৮.৯ মিলিয়ন মার্কিন ডলার পাঠিয়েছে। অর্থাৎ চলতি বছরের প্রথম চারমাসে শ্রীলঙ্কা তাদের কাছ থেকে ১,০৩১.৫ মিলিয়ন ডলার পেলেও ২০২১ সালের একই সময়ে তারা পাঠিয়েছিল ২,৩৮৫.৮ মিলিয়ন ডলার। অর্থাৎ দুটি বছরের একই সময়ের তুলনায় রেমিটেন্স ৫৬.৮ শতাংশ হ্রাস রেকর্ড করেছে।

শ্রীলঙ্কা সাধারণত বছরে ৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার রেমিট্যান্স পায় এবং ২০২০ সালে দেশটি ৭.১ বিলিয়ন মার্কিন ডলার পেয়েছিল কারণ হুন্ডি ব্যবসা মহামারীর ফলে ব্যাপক হ্রাস পায়। কিন্তু, গত বছরের জুনে শ্রীলঙ্কার বৈদেশিক মুদ্রার সমস্যা আরও প্রকট হয়ে উঠলে এবং কেন্দ্রীয় ব্যাংক একটি অবাস্তব বিনিময় হারে লেগে থাকার কারণে, অভিবাসী শ্রমিকরা ব্যাঙ্কের পরিবর্তে অনানুষ্ঠানিক মানি চেঞ্জারদের বেছে নিয়েছিল এবং এর ফলে হুন্ডি ব্যবসা চাঙ্গা হয়ে ওঠে। বর্তমান প্রবণতা অব্যাহত থাকলে, শ্রীলঙ্কা ২০২২ সালে রেমিট্যান্সের সাধারণ বার্ষিক প্রাপ্তির অর্ধেকও পাবে না, যা দেশটিকে আরও অর্থনৈতিক অতল গহ্বরে নিমজ্জিত করবে। প্রতি মার্কিন ডলারের বিপরীতে ব্যাংকিং চ্যানেলে ৩৬০ রুপি দেওয়া হলেও হুন্ডি ব্যবসায়ীরা আরো আকর্ষণীয় অফার দিচ্ছে। কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্ক, ট্রেজারি সহ একটি আইনের খসড়া তৈরি করছে যারা তাদের বৈদেশিক আয় ব্যাংকে না এনে হুন্ডির মাধ্যমে আনে তাদের ধরতে।

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়