শিরোনাম
◈ সিরিজ বোমা হামলার ১৭ বছর পূর্তিতে সারা দেশে আওয়ামী লীগ বিক্ষোভ করবে ◈ ১৭ বছরেও সিরিজ বোমা হামলার বিচার শেষ হয়নি ◈ কর্তৃপক্ষের আশ্বাস পেয়ে আন্দোলন প্রত্যাহার করলেন খুবি শিক্ষার্থীরা ◈ নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ১২ সদস্যের ট্রাস্টি বোর্ড পুনর্গঠন ◈ কুয়াকাটায় অনির্দিষ্টকালের জন্য হোটেল-রেস্তোরাঁ বন্ধ ঘোষণা ◈ ছাত্রদের মারধর করায় ট্রেন অবরোধ, দুই সহকারী চেকার সাসপেন্ড ◈ দেশের মানুষ এখন অনেক শান্তিতে আছে : সমাজকল্যাণমন্ত্রী ◈ বঙ্গবন্ধুর জন্ম না হলে আমরা স্বাধীনতা পেতাম না: রণজিৎ কুমার রায় এমপি ◈ উত্তরায় গার্ডার পড়ে নিহত ৪ জনের দাফন জামালপুরে সম্পন্ন ◈ দিরাইয়ে বসতঘর থেকে যুবকের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার

প্রকাশিত : ২২ মে, ২০২২, ০৭:৪২ বিকাল
আপডেট : ২৮ জুন, ২০২২, ১২:০১ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের সতর্কতা

শ্রীলঙ্কার বিক্ষোভ অন্যান্য দেশে ছড়িয়ে পড়তে পারে

রাশিদুল ইসলাম : [২] বিভিন্ন দেশের সরকার সমাজের দরিদ্রতম মানুষের জন্যে খাদ্য ও জালানি শক্তির খরচে ভর্তুকি দিতে সঠিকভাবে সরকারি সমর্থন ছাড়া শ্রীলঙ্কার মত বিক্ষোভ অন্যান্য দেশে পুনরাবৃত্তি হতে পারে। এমন আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) প্রধান ক্রিস্টালিনা জর্জিয়েভা এ ধরনের সতর্ক করে বলেন, বিশ্বজুড়ে মানুষ জীবনযাত্রার ক্রমবর্ধমান ব্যয়ের সাথে লড়াই করছে। ডেইলি মিরর অনলাইন

[৩] ক্রিস্টালিনা জর্জিয়েভা বলেন, বিভিন্ন দেশের সরকার কিছু সাহায্য দিচ্ছে কিন্তু সমালোচকরা যুক্তি দিচ্ছেন যে এটি যথেষ্ট নয়। জীবনযাত্রার সংকটের কথা উল্লেখ করে জর্জিভা বলেন, দুটি অগ্রাধিকার রয়েছে, একটি হল অত্যন্ত দরিদ্র মানুষ, সমাজের অংশ যারা এখন উচ্চ খাদ্য এবং জালানি শক্তির দামের সাথে লড়াই করছে। দ্বিতীয়টি হচ্ছে ইউক্রেনের যুদ্ধে ‘সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত’ ব্যবসাগুলিকে সমর্থন করা। 

[৪] আইএমএফ প্রধান বলেন, খাদ্যের দাম এই বছর রেকর্ড উচ্চতায় পৌঁছেছে, যেখানে তেল এবং গ্যাসের দামও তীব্রভাবে বেড়েছে।

[৫] জর্জিয়েভা উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, সঠিক সরকারের সমর্থন ছাড়া শ্রীলঙ্কায় দেখা বিক্ষোভ অন্যান্য দেশে পুনরাবৃত্তি হতে পারে। শ্রীলঙ্কার অর্থনৈতিক সঙ্কট, ক্রমবর্ধমান মূল্যস্ফীতির কারণে, মারাত্মক দাঙ্গা, একজন নতুন প্রধানমন্ত্রী এবং প্রথমবারের মতো অর্থনীতি ঋণের খেলাপির দিকে পরিচালিত করেছে। 

[৬] জর্জিয়েভা বলেন, ফ্রান্স থেকে চিলি পর্যন্ত মহামারীর আগে এই জাতীয় অস্থিরতা ‘বড়বৈষম্যের অনুভূতি’ এবং জনগণের সমর্থন ছাড়াই সিদ্ধান্ত নেওয়ার কারণে হয়েছিল।

[৭] তিনি বলেন, ‘আমরা যদি ২০১৯ থেকে কোনো শিক্ষা নিতে চাই, যদি নীতিগত সিদ্ধান্তের বিষয়ে অনেক বেশি নম্র হতে হয় এবং মানুষের সাথে একাধিক উপায়ে জড়িত হতে হয়, কারণ নীতিগুলি অবশ্যই মানুষের জন্য হতে হবে, আমরা যে কাগজে লিখি তা নয়’। 

  • সর্বশেষ