শিরোনাম

প্রকাশিত : ১৭ মে, ২০২২, ০৬:৫৯ সকাল
আপডেট : ২৮ জুন, ২০২২, ১০:৪৮ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

আজ শুনানি সুপ্রিম কোর্টে

জ্ঞানবাপী মসজিদ কমপ্লেক্সের জরিপ শেষ, হিন্দুত্ববাদীদের বিতর্কিত দাবি

রাশিদ রিয়াজ : ভারতে বিজেপিশাসিত উত্তর প্রদেশের বারাণসী আদালতের নির্দেশে সোমবার জ্ঞানবাপী মসজিদ কমপ্লেক্সের জরিপের কাজ শেষ হয়েছে। পারসটুডে

 বেসরকারি হিন্দি টেলিভিশন চ্যানেল ‘আজতক’–এর ওয়েবসাইটে  প্রকাশ, শেষদিনের জরিপের পর হিন্দুপক্ষের দাবি,  জ্ঞানবাপী মসজিদ চত্বরে কুয়োর ভেতরে শিবলিঙ্গ পাওয়া গেছে। একইসময়ে, মুসলিম পক্ষ এটি মানতে প্রস্তুত নয় এবং তাদের পক্ষ থেকে ওই দাবি প্রত্যাখ্যান করা হয়েছে। মুসলিম পক্ষ বলছে, ভেতরে এমন কিছু পাওয়া যায়নি। এদিকে, বারাণসী আদালত জেলা ম্যাজিস্ট্রেটকে অবিলম্বে সংশ্লিষ্ট জায়গাটি ‘সিল’ করার নির্দেশ দিয়েছে।

 গত শনিবার থেকে মসজিদের ভিতরে দু’টি গম্বুজ, ভূগর্ভস্থ অংশ, পুকুরসহ সব জায়গার পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে জরিপ এবং ভিডিয়োগ্রাফি করে সোমবার বারাণসীর আদালতে রিপোর্ট পেশ করা হয় জরিপ টিমের পক্ষ থেকে। তারপরেই কয়েকটি এলাকা ‘সিল’ করার নির্দেশ দেয় আদালত।    

আবেদনকারী হিন্দুত্ববাদী পক্ষের আইনজীবী হরিশঙ্কর জৈন সোমবার বলেন,  ‘ওজুখানার পুকুরে শিবলিঙ্গের অস্তিত্ব মেলার কারণেই আদালত ওই পদক্ষেপ করেছে।’ আবেদনকারী পক্ষের আর এক আইনজীবী মদনমোহন যাদবের দাবি,  মসজিদের পশ্চিমের দেওয়ালের অদূরে অবস্থিত নন্দীমূর্তির মুখ রয়েছে শিবলিঙ্গের দিকে। এ সবের মধ্যে সুপ্রিম কোর্ট সোমবার জানিয়েছে, জ্ঞানবাপীতে জরিপ ও ভিডিয়োগ্রাফি বন্ধের দাবিতে দায়ের করা আবেদনের শুনানি হবে মঙ্গলবার।       

হিন্দুত্ববাদীদের দাবি, জ্ঞানবাপী মসজিদ যে জমিতে গড়ে উঠেছে, তা আসলে হিন্দুদের। সুতরাং, সেই জমি হিন্দুদের ফিরিয়ে দেওয়া হোক। মুঘল সম্রাট আওরঙ্গজেব দু’হাজার বছরের পুরনো কাশী বিশ্বনাথ মন্দিরের একাংশ ধ্বংস করে সেখানে মসজিদ গড়ে তোলেন দাবি জানিয়ে সেখানে ‘হিন্দুত্বের ছাপ’  খুঁজতে প্রত্নতাত্ত্বিক জরিপের দাবি জানানো হয় আদালতে। অন্যদিকে, জ্ঞানবাপী মসজিদ চত্বরে ‘দেবদেবীর মূর্তি’ আছে  দাবি করে সেগুলো পুজো করার অনুমতি চেয়ে ২০২১ সালে আদালতে একটি পৃথক আবেদন আবেদন করেন পাঁচ মহিলা। ওই ইস্যুতে গত (বৃহস্পতিবার) বারাণসীর জেলা আদালত ভারতীয় পুরাতত্ত্ব সর্বেক্ষণকে (আর্কিওলজিকাল সার্ভে অব ইন্ডিয়া) জ্ঞানবাপী মসজিদের প্রত্নতাত্ত্বিক জরিপ করার নির্দেশ দিয়েছিল। সেই রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টে আবেদন জানানো হলেও তা খারিজ হয়ে যায়।       

‘আজতক’ সূত্রে প্রকাশ, এ প্রসঙ্গে আজ মজলিশ-ই-ইত্তেহাদুল মুসলেমিন প্রধান ব্যারিস্টার আসাদউদ্দিন ওয়াইসি এমপি বলেছেন, নিম্ন আদালতের সিদ্ধান্ত সংসদের আইনের লঙ্ঘন। ওয়াইসি বলেন, মোদীজি বলুন যে তিনি ১৯৯১ সালের আদেশ মানবেন না। একে গঙ্গায় ভাসিয়ে দাও। তিনি বলেন, কোনো ধর্মের মন্দির, মসজিদের প্রকৃতি ও চরিত্রে যাতে কোনোপ্রকার পরিবর্তন না করা হয় সেজন্য ওই আইন করা হয়েছিল।   

আদালতের সিদ্ধান্তে বিস্ময় প্রকাশ করে ওয়াইসি বলেন, আগামীকাল সুপ্রিম কোর্টে যখন শুনানি হবে, তখন নিম্ন আদালতের এত তাড়া কীসের ‘সিল’ করার জন্য?  ওয়াইসি বলেন, আইনত এটি অজুখানা ছিল এবং অজুখানাই থাকবে। জ্ঞানবাপী একটি মসজিদ আছে, ছিল এবং কিয়ামত পর্যন্ত তা থাকবে বলেও মন্তব্য করেন মজলিশ-ই-ইত্তেহাদুল মুসলেমিন প্রধান ব্যারিস্টার আসাদউদ্দিন ওয়াইসি এমপি।     

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়