শিরোনাম
◈ লঞ্চের ভাড়া পুনর্নির্ধারণে বৈঠক আজ ◈ জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে জাতীয় পার্টির দুইদিনের কর্মসূচি ◈ সদরঘাটে দুই লঞ্চের চাপায় পড়ে ট্রলারযাত্রী নিহত ◈ বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিবের ৯২তম জন্মবার্ষিকী আজ ◈ রাজধানীর শাহবাগে আন্দোলনকারীদের ওপর পুলিশের হামলা, আহত ২০ (ভিডিও) ◈ রাজধানীতে পুলিশের গাড়ি ভাঙচুরের মামলায় জামায়াতের ৬ কর্মী গ্রেপ্তার ◈ হজে গিয়ে ভিক্ষা: অবশেষে জামিন পেলেন মতিয়ার ◈ মাঝিপাড়া হিন্দুপল্লীতে অগ্নিসংযোগের ঘটনায় ৫১ আসামি কারাগারে ◈ পরিবারের ৪ জনই ভুয়া চিকিৎসক, করেন জটিল রোগের চিকিৎসা ◈ চলন্ত বাসে ডাকাতি-ধর্ষণ, মূল পরিকল্পনাকারীসহ গ্রেপ্তার ১০

প্রকাশিত : ০৭ জুলাই, ২০২২, ০৬:৩৬ বিকাল
আপডেট : ০৭ জুলাই, ২০২২, ০৬:৩৬ বিকাল

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

ভারতে মাত্র ১০.৫ শতাংশ নারী পুলিশ, ৩টির ১টি থানায় সিসিটিভি রয়েছে

রাশিদুল ইসলাম : ইন্ডিয়া জাস্টিস রিপোর্ট বলছে ভারতের পুলিশ বাহিনীতে ৩৩ শতাংশ নারী প্রতিনিধিত্ব অর্জন করতে ৩৩ বছর সময় লাগবে। যদিও ভারতীয় পুলিশ বাহিনীর শক্তি ১০ বছরে ৩২ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে, তবে রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিতে নারীরা সমগ্র বাহিনীর মাত্র ১০.৫ শতাংশ, যেখানে তিনটি থানার মাত্র একটি সিসিটিভি দিয়ে সজ্জিত। দি প্রিন্ট

২০২১ সালের জানুয়ারি পর্যন্ত ভারতের ৪১ শতাংশ থানায় এখনও নারীদের জন্য হেল্প ডেস্ক পাওয়া যায়নি। সমস্ত থানা জুড়ে এই ধরনের হেল্প ডেস্কের একমাত্র রাজ্য হল ত্রিপুরা, যেখানে অরুণাচল প্রদেশে একটিও নেই। নয়টি রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে, ৯০ শতাংশেরও বেশি থানায় নারীদের জন্য হেল্প ডেস্ক রয়েছে।

পুলিশ রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট ব্যুরো’র বার্ষিক ‘ডাটা অন পুলিশ অর্গানাইজেশন রিপোর্ট ২০২১’-এ প্রকাশিত সরকারি পরিসংখ্যান এবং আইজেআর-এর পুলিশ বাজেট, মানবসম্পদ, বৈচিত্র এবং কাজের চাপের পরিমাণগত এবং তুলনামূলক পরিমাপের ভিত্তিতে, প্রতিবেদনে দেখা গেছে যে পুলিশ বাহিনীতে নারীর শতকরা হার ৩.৩ শতাংশ থেকে ১০.৫ শতাংশে উন্নীত হতে ১৫ বছর (২০০৬ থেকে ২০১৫ সাল) সময় লেগেছে।

ভারতের ছয়টি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল এবং ১১টি রাজ্যে পুলিশ বাহিনীতে নারীদের  জন্য ৩৩ শতাংশ সংরক্ষণের লক্ষ্য রয়েছে। বিহারে লক্ষ্যমাত্রা ৩৮ শতাংশ, অরুণাচল প্রদেশ, মেঘালয় এবং ত্রিপুরায় এটি ১০ শতাংশ। আরও সাতটি রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে কোনও সংরক্ষণ নেই। যাইহোক, ২০২০ সাল পর্যন্ত, কোনো রাজ্য এ লক্ষ্য অর্জন করতে পারেনি। 

তামিলনাড়ু, বিহার এবং গুজরাট, বৃহৎ এবং মাঝারি আকারের রাজ্যগুলির মধ্যে, পুলিশ বাহিনীতে সর্বোচ্চ ১০.৪, ১৭.৪ এবং ১৬ শতাংশে নারীদের অংশীদারিত্ব রয়েছে, কিন্তু তাদের নির্ধারিত লক্ষ্য ৩০, ৩৮ পূরণ করতে ব্যর্থ হয়েছে। কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলির মধ্যে চণ্ডীগড়ে ২২.১ শতাংশ নারী রয়েছে যা সর্বাধিক। অন্ধ্রপ্রদেশে এ সংখ্যা সর্বনিম্ন ৬.৩ শতাংশ। তারপর ঝাড়খণ্ড ও মধ্যপ্রদেশে এ হার ৬.৬ শতাংশ। 

বিহার এবং হিমাচল প্রদেশ রাজ্যগুলি পুলিশ বাহিনীতে নারীদের অংশ বরং কমেছে। ২০১৯ সালে, বিহারে ২৫.৩ শতাংশ নারী পুলিশ ছিল যা ২০২০ সালে ১৭.৪ শতাংশে নেমে আসে। হিমাচল প্রদেশে তা কমে দাঁড়িয়েছে ১৩.৫ শতাংশে। ভারতের বড় রাজ্য যেমন ওরিশায় পুলিশে ৩৩ শতাংশ নারীর অবস্থান নিশ্চিত করতে ৪২৮ বছর সময় লাগবে, বিহারের ৮ বছর লাগবে। দিল্লি পুলিশের ৩১ বছর সময় লাগবে আর মিজোরামের একই লক্ষ্যে পৌঁছতে ৫৮৫ বছর লাগবে।

ভারতে জাতীয়ভাবে নারী পুলিশ অফিসারদের শতাংশ এখনও কম, ৮.২ শতাংশ, এবং ১১টি রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে, এটি ৫ শতাংশ বা তার কম। তামিলনাড়ু ও মিজোরামে নারী পুলিশ অফিসারের সংখ্যা সর্বোচ্চ ২০.২ শতাংশ, জম্মু ও কাশ্মীরে সর্বনিম্ন ২ শতাংশ। কেরালায় এই সংখ্যা রয়েছে ৩ শতাংশে, আর পশ্চিমবঙ্গে ৪.২ শতাংশ। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, লাক্ষাদ্বীপে, যেখানে ১৮ জন পুলিশ সদস্য থাকলেও সেখানে কোনও নারী অফিসার নেই। 

২০২১ সালের ভারতের পুলিশ সংস্থার প্রতিবেদনের তথ্য অনুসারে, দেশটির ১৭,২৩৩টি থানার মধ্যে, ৫,৩৯৬টিতে একটিও সিসিটিভি ক্যামেরা নেই। শুধুমাত্র তিনটি রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল - ওড়িশা, তেলেঙ্গানা এবং পুদুচেরি - প্রতিটি থানায় কমপক্ষে একটি সিসিটিভি রয়েছে। মণিপুর, লাদাখ এবং লাক্ষদ্বীপে, কোনও থানায় সিসিটিভি নেই। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রাজস্থানে, যেখানে ৮৯৪টি পুলিশ স্টেশন রয়েছে, সেখানে শুধুমাত্র একটি সিসিটিভি রয়েছে।

  • সর্বশেষ