শিরোনাম

প্রকাশিত : ০৭ জুলাই, ২০২২, ১০:১৬ দুপুর
আপডেট : ০৭ জুলাই, ২০২২, ১০:১৬ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

নাইজেরিয়ায় জেল ভেঙ্গে পালিয়েছে জিহাদীসহ ৪০০ বন্দী  

জেল ভেঙ্গে পালালো বন্দী

মাকসুদ রহমান : নাইজেরিয়ার রাজধানীর আবু জা এর জেল ভেঙ্গে কয়েদি পালিয়ে যাওয়ার পর পর্যালোচনা করে দেখা যায় ৪০০ বেশি কয়েদি নিঁখোজ রয়েছে। জেল কর্মকর্তা এ তথ্য জানিয়ে আরো বলেছেন, এ ঘটনায় জেলখানাটির চার বন্দী এক নিরাপত্তা রক্ষী এবং কয়েকজন আক্রমণকারীর মৃত্যু হয়। বিবিসি

এই ঘটনার সঙ্গে ইসলামিক জঙ্গি গোষ্ঠি জড়িত আছে বলে সন্দেহ করা হচ্ছে। এ ঘটনায় জড়িত কয়েক ডজন জিহাদি পলায়নরত আছে বলেও মনে করা হচ্ছে। ২০২০ সাল থেকে এখন পর্যন্ত নাইজেরিয়াতে জেল ভেঙ্গে কমপক্ষে ৫ হাজারের বেশি বন্দী পালিয়েছে। 
মঙ্গলবার জেলখানাটিতে হামলায় সময় ব্যাপক বিস্কোরণ এবং গোলাগুলির শব্দ হয়। এমনকি পার্শ্ববর্তী কুজের নিরাপত্তা জেলখানা থেকেও এই হামলার শব্দ শোনা যায়। অথচ এলাকাটি রাজধানীর বাহিরে অবস্থিত।

স্থানীয় একজন বাসিন্দা সংবাদ সংস্থা এএফপিকে বলেছেন, আমরা সড়কে গোলাগুলির শব্দ শুনেছিলাম। আমরা ভাবছিলাম এটা অস্ত্রধারী ডাকাতদের হামলা। গোলাগুলির পর আমরা একে একে তিনটি বিস্ফোরণের শব্দ শুনতে পাই। 

নাইজেরিয়ার সংশোধন সেবাকেন্দ্র জানিয়েছে, এই হামলায় চারজন বন্দী নিহত হন এবং ১৬ জন আহত হন। 

এই হামলার সময় আবু জা এর কারাগারটিতে বেশ কয়েকজন হাই-প্রোফাইলের আসামীও বন্দী ছিলেন, যাদের মাঝে ছিল সন্দেহভাজন জঙ্গী এবং সাজাপ্রাপ্ত রাজনীতিবিদ। আক্রমনের সময়েও তারা কারাগারের ভেতরেই ছিলেন। তবে তাদের কেউই পালিয়ে যাননি বলে জানিয়েছেন জেলখানাটির উর্ধ্বতন কর্মকর্তা। 

কারাগারটির অপর এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, জেলখানাটিতে হামলার সময় প্রায় ১০০০ বন্দী ছিল। তাদের প্রায় সকলেই পালিয়ে যায়। তবে এদের মধ্যে ৪৪৩ জনকে আবারো পুনরায় বন্দী করা হয়। 

দেশটির প্রতিরক্ষা মন্ত্রী বাশির মাগাশি বলেছেন, সম্ভবত বোকো হারাম নামক সন্ত্রাসী বাহিনী এই হামলার সঙ্গে জড়িত এবং জেলখানাটি থেকে ৬৪ জন সাজাপ্রাপ্ত জিহাদী পালিয়েছে। তাদের মাঝে কাউকেই আর পুনরায় বন্দীও করা যায়নি।

ওই হামলটির দায় স্বীকার করেছে তথাকথিত ইসলামিক স্টেট গ্রুপ (আইএস)। সংস্থাটি পশ্চিম আফ্রিকাতে আইএসডাব্লিউএপি নামে হামলা চালিয়ে থাকে এবং বোকো হারামের সঙ্গে জোটবদ্ধ হয়ে কাজ করে। তাদের দাবি হামলার মাধ্যমে তারা ১০ হাজার বন্দিকে ছিনিয়ে নিয়েছে। সম্পাদনা: মাজহারুল ইসলাম  

  • সর্বশেষ