Skip to main content

স্বপ্নের বাংলাদেশ গড়ার জন্য গণমাধ্যমের সহায়তা প্রয়োজন : তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ

জিয়াউদ্দিন রাজু : তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ এমপি বলেছেন, স্বপ্নের বাংলাদেশ গড়ার জন্য সরকার ও সংবাদকর্মীদের এক সঙ্গে কাজ করতে হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা দেশের গণমাধ্যমকে উন্নত বিশ্বের সমমানে উন্নীত করতে চাই। আমাদের নতুন সময়ের সঙ্গে একান্ত সাক্ষাতকারে তথ্যমন্ত্রী তার কর্মপরিকল্পনা ও বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলেন।

তথ্যমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক হাছান মাহমুদ বলেন, ‘গণমাধ্যম হচ্ছে রাষ্ট্রের চতুর্থ অঙ্গ। রাষ্ট্রের এক্সিকিউটিভ অথরিটির সাথে যদি গণমাধ্যমের কাজের সমন্বয় না থাকে, তাহলে রাষ্ট্র এবং সমাজ ক্ষতিগ্রস্ত হয়। 

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশে ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া, প্রিন্ট মিডিয়া ও অনলাইন মিডিয়ার বিকাশ হয়েছে। সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে বিপ্লব ঘটেছে। এভাবে গণমাধ্যমের পাশাপাশি আমাদের সামনে অনেকগুলো চ্যালেঞ্জও এসে দাঁড়িয়েছে। চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করার জন্য আমারে সমন্বিতভাবে কাজ করতে হবে। কারণ সমাজকে সঠিকভাবে প্রভাবিত করার ক্ষেত্রে গণমাধ্যমের ভূমিকা রয়েছে।’

মন্ত্রী বলেন,‘মানুষের মনন সঠিক ক্ষেত্রে প্রভাবিত করার ক্ষেত্রে গণমাধ্যম বিশাল ভূমিকা রাখে। অসত্য সংবাদ সমাজের ক্ষতিও করে। এ চ্যালেঞ্জগুলো মোকাবেলা করার জন্য রাষ্ট্রের সঙ্গে গণমাধ্যমের সমন্বয় এবং বোঝাপড়াও প্রয়োজন। যেটি আমাদের দেশে আছে, এটিকে আরও বিস্তৃত করা আমাদের কাজ।’

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘গণমাধ্যমকর্মী ও সাংবাদিকদের অনেক অভাব অভিযোগ। ভালো অথচ রুগ্ন কিছু গণমাধ্যম রয়েছে। সেগুলোকে কীভাবে সহায়তা করা যায়, সেই কাজগুলো আমাদেরকে করতে হবে। একুশ শতকের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করে আমরা যে স্বপ্নের বাংলাদেশ গড়ার কথা বলি, তা সরকারের একার পক্ষে সম্ভব নয়। এ সমস্ত কিছুর কাজে সমন্বয় করতে হবে। গণমাধ্যম কর্মীদের অভিযোগ বিবেচনায় নিয়ে তাদের অসুবিধাগুলো আমাদের দূর করতে হবে।’

এই মুহূর্তে কী কী চ্যালেঞ্জ রয়েছে, জানতে চাইলে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘প্রথমে পরিকল্পনা করতে হবে। আমার পূর্বসূরী অনেক ভালো কাজ করেছেন। অনেকগুলো কাজ এগিয়ে রেখেছেন। অনেকগুলো কাজ সম্পন্নও করে গেছেন। তার যে অসমাপ্ত কাজগুলো রয়েছে সেগুলো সমাপ্ত করতে হবে। একই সঙ্গে আরও নতুন পরিকল্পনা নিয়ে আমি প্রথমে আমার সহকর্মীদের সঙ্গে, মানে মন্ত্রনালয়ে যারা রয়েছেন, তাদের সঙ্গে আলোচনা করবো। পরিকল্পনা করবো। তারপর জনসমক্ষে তুলে ধরবো।’ 

স্বাধীন মত প্রকাশের ক্ষেত্রে বাংলাদেশের অবস্থান কেমন হবে? এ প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের দেশে গণমাধ্যম যে পরিমাণ স্বাধীনতা ভোগ করে অনেক দেশে তা নেই। সরকারের প্রতিও গণমাধ্যমের কর্তব্য আছে। আমাদের গণমাধ্যমকে আমরা স্বাধীনতা  ও দায়িত্ববোধ দুটি থেকেই ইউরোপীয় স্ট্যান্ডার্ড-এ নিয়ে যেতে চাই। সেক্ষেত্রেও সাংবাদিকদের সঙ্গে আলোচনা করেই এগুতে চাই।’ সম্পাদনা : সালেহ্ বিপ্লব

অন্যান্য সংবাদ