Skip to main content

মিয়ানমারে দণ্ডপ্রাপ্ত দুই রয়টার্স সাংবাদিকের আপিল খারিজ ৭ বছরের কারাদণ্ড বহাল

Article Highlights

‘আজকের রায় ওয়া লোন এবং কিউ সোয় ও এর সঙ্গে হওয়া অনেক অন্যায় এর একটি। মিয়ানমার কোন মুক্ত দেশ নয়। আইনের শাষণ এবং গণতন্ত্রের প্রতি মিয়ানমারের প্রতিশ্রুতি সন্দেহজনক।’ 
 

মিয়ানমারে কারাদণ্ডপ্রাপ্ত রয়টার্সের দুই সাংবাদিকের আপিল খারিজ করে ৭ বছরের কারাদণ্ড বহাল রেখেছে মিয়ানমারের একটি আদালত। দেশটির জাতীয় গোপনীয়তা বিধিমালার অধিনে তাদের এই সাজা দেয়া হয়েছিলো। আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের অভিযোগ, রোহিঙ্গা গণহত্যার তথ্য সংগ্রহ করায় তাদের মিথ্যা অভিযোগে ফাঁসানো হয়েছে। আল জাজিরা। 

গত নভেম্বরে ওয়া লোন এবং কিউ সোয় ও এর আইনজীবিরা তাদের খালাস চেয়ে আপিল করে। তাদের দাবি, এই দুই সাংবাদিকের বিরুদ্ধে আনিত সকল অভিযোগ এবং প্রমান বানোয়াট। শুক্রবার মিয়ানমার হাইকোর্টের বিচারক অং নায়েং শুক্রবার নিজের রায়ে বলেছেন, এই দুই সাংবাদিককে দির্দোষ প্রমাণের জন্য প্রয়োজনীয় প্রমাণ তাদের আইনজীবিরা উপস্থাপন করতে পারেননি। তিনি আরো বলেন, অভিযুক্তরা সাংবাদিকতার নীতিমালা মেনে নিজেদের কার্যক্রম পরিচালনা করেননি। ইয়াঙ্গুনের এই বিচারক বলেন, ‘এটা খুবই ভালো সাজা হয়েছে।’ এই দুই সাংবাদিকের সামনে এখন নেইপেইদোর সুপ্রিম কোর্টে আপিল করার সর্বশেষ সুযোগ রয়েছে। 

এদিকে রয়টার্সের এডিটর ইন চিফ স্টিফেন জে. আডলার এক বিবৃতিতে বলেন, ‘আজকের রায় ওয়া লোন এবং কিউ সোয় ও এর সঙ্গে হওয়া অনেক অন্যায় এর একটি। মিয়ানমার কোন মুক্ত দেশ নয়। আইনের শাষণ এবং গণতন্ত্রের প্রতি মিয়ানমারের প্রতিশ্রুতি সন্দেহজনক।’ 
 

অন্যান্য সংবাদ