Skip to main content

বিক্ষোভের নামে সহিংসতা কারো কাছেই কাম্য নয়

ফাহিম বিজয় : বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মালেকা বানু শ্রমিক আন্দোলন প্রসঙ্গে বলেছেন, পোশাক খাতের শ্রমিকদের বেতন কাঠামোয় অসঙ্গতি চলতি জানুয়ারির মধ্যেই সমাধানের আশ্বাস দেয়া হয়েছে। ৮ জানুয়ারি মঙ্গলবার সরকার-মালিক-শ্রমিক ত্রিপক্ষীয় প্রতিনিধির সমন্বয়ে গঠিত ক্রাইসিস ম্যানেজমেন্ট কোর কমিটির জরুরি বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত দেয়া হয়েছে। একই সঙ্গে মজুরি ইস্যুতে শ্রমিক আন্দোলন, রাস্তা অবরোধ, গাড়ি ভাংচুর ও জ্বালাও-পোড়াও পরিহার করে কাজে ফেরারও আহ্বান জানানো হয়েছে। বিক্ষোভ কাম্য কিন্তু বিক্ষোভের নামে সহিংসতা কারো কাছেই কাম্য নয় বলে মন্তব্য করেন তিনি।এ প্রতিবেদকের সঙ্গে আলাপকালে তিনি বলেন, ন্যূনতম মজুরি বাস্তবায়নসহ বিভিন্ন দাবিতে মঙ্গলবার রাজধানীর মিরপুর, উত্তরখান, দক্ষিণখান, আজমপুরসহ বিভিন্ন এলাকায় রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ করে শ্রমিকরা। পুলিশের সঙ্গে তাদের ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া হয়েছে এবং বেশ কয়েকটি গাড়িও ভাংচুর করেছে তারা। শ্রমিকদের বিক্ষোভের কারণে দেড় মাস আগে ঘোষিত নতুন মজুরি কাঠামো পর্যালোচনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। ন্যায্য মজুরি থেকে কেউ কমানোর চেষ্টা করলে সরকার শ্রমিকদের পক্ষ হয়ে তা প্রতিরোধ করবে। এখন সরকারের উপর তাদের আস্থা রাখা উচিত। শ্রমিকদেরকে বলতে চাই অসহিষ্ণু হলে চলবে না। অবরোধ-ভাংচুর, জ্বালাও-পোড়াওয়ের মাধ্যমে দাবি আদায় হয় না। 
তিনি আরো বলেন, বিভিন্ন গ্রেডে যাদের বেতন কম বেড়েছে, সেটি ইতিমধ্যে গঠিত কমিটির পর্যালোচনায় সব ধরা পড়বে। এ বিষয়ে মালিক ও সরকার পক্ষ আমাদের আশ্বস্ত করেছে। এখন থেকে নতুন গেজেট অনুযায়ী সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা দেয়া হবে। তাই আমার কাছে মনে হয়, তাদের আন্দোলন ছেড়ে কর্মস্থলে যোগ দেয়া উচিত এবং ধ্বংসাত্মক কর্মকা- ছেড়ে কর্মক্ষেত্রে ফিরে আসা উচিত।