Skip to main content

পিকনিক মুডে মন্ত্রিসভা!

সোমবার (৭ জানুয়ারি) বঙ্গভবনে শপথ নিয়েছে ৪৭ সদস্যের নয়া মন্ত্রিসভা। মন্ত্রিসভার ৩১ জন নতুন, ২৭ জনই আনকোরা, মানে আগে কখনোই মন্ত্রী ছিলেন না। পরদিন মঙ্গলবার ছিলো নতুন মন্ত্রীদের প্রথম কার্যদিবস। ২৭ জন নতুন মন্ত্রীর প্রথম অফিস করা নিয়ে নানা  কৌতূহল ছিলো। কিন্তু সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যে দুজন শিরোনাম হয়েছেন, আলোচিত হয়েছেন; তারা দুজনই পুরোনো। সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও নতুন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি ঘর ঝাড়– দিচ্ছেন, এমন একটি ছবি হঠাৎ ভাইরাল হয়। মন্ত্রী কতো সাধারণ, নিজে অফিস ঝাড়ু দিচ্ছেন; এমন ক্যাপশনে তার শুভাকাক্সক্ষীদের কেউই ছবিটি ছড়ায়। কিন্তু আলোচনা হয় উল্টো, ঝাড়ু দেয়া মন্ত্রীর কাজ নয়। যার ঝাড়ু দেয়ার কথা, তিনি কেন কাজ করেননি; সেটা দেখা হোক। পরে জানা গেলো, পুরো আলোচনাটাই অর্থহীন। ডা. দীপু মনি নিজেই জানালেন, এটা মাসখানেক আগে চাঁদপুরের বাসায় তোলা। আর বাসার টুকটাক কাজ তিনি নিজেই করেন।

অপর আলোচিত ছবিটির উৎস অবশ্য সংশ্লিষ্ট প্রতিমন্ত্রীর ফেসবুক পেজ। আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক প্রথম দিন অফিসে গেছেন বাইকে চড়ে। এটুকুতে সমস্যা হতো না। আলোচনার ঝড় ওঠে প্রতিমন্ত্রীর মাথায় হেলমেট না থাকায়। জুনাইদ আহমেদ পলক এমনিতে ফেসবুকে খুব সক্রিয়। ফেসবুক ফলো করলে তার দৈনন্দিন কাজ সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যায়। প্রথম দিন বাইকে অফিসে যাওয়ার উত্তেজনাটা তিনি শেয়ার না করে পারেননি। আমিও মানছি, প্রতিমন্ত্রীর হেলমেট ছাড়া বাইকে চড়া ঠিক হয়নি। কিন্তু জুনাইদ আহমেদ পলকের বয়সটাও বিবেচনায় নেয়া উচিত ছিলো। তার বয়স মাত্র ৩৮। তিনি নিজেই বাইক চালাতে পছন্দ করেন। তিনি ভালো গিটার বাজান, গান করেন। পরিবারের সদস্যদের নিয়ে ঘুরতে যান। তাই তার হেলমেট ছাড়া বাইকে চড়াটা বেঠিক হলেও মহাভারত অশুদ্ধ হয়ে যায়নি। তিনি অবশ্য ব্যাখ্যা দিয়েছেন তাড়াহুড়ো করতে গিয়ে যে বাইকে চড়েছেন, তাতে এক্সট্রা হেলমেট ছিলো না।

তবে মন্ত্রিসভার সদস্যরা, পিকনিক মুডে ছিলেন মঙ্গলবার ও বুধবার। মঙ্গলবার ধানমন্ডি ৩২ নাম্বারে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে মন্ত্রিসভার সদস্যরা যান সাভার স্মৃতিসৌধে। প্রধানমন্ত্রী ছাড়া বাকি মন্ত্রীরা গেছেন চারটি এসি বাসে চড়ে। পরদিন তারা টুঙ্গিপাড়া গেছেন বাসে চড়েই। ৪৬টি গাড়ি একসাথে মুভ করার চেয়ে চারটি বাসে যাওয়া অনেক বেশি সাশ্রয়ী, পরিবেশবান্ধব। তার চেয়ে বড় কথা পুরো মন্ত্রিসভা একসাথে বাসে চড়ে কোথাও যাচ্ছে- বিষয়টার মধ্যে যে উষ্ণতা, আন্তরিকতা আছে; তা আগামী দিনে তাদের অনেক কাজ অনেক সহজ করে দেবে। স্মৃতিসৌধ ও টুঙ্গিপাড়ায় যাওয়া-আসায় মন্ত্রীরা ছিলেন পিকনিক মুডে। এমনিতেও নতুন মন্ত্রিসভা মাসতিনেকের একটা হানিমুন পিরিয়ড পাবে। তবে পুরোনো মন্ত্রীদের এই ছাড় দেয়া ঠিক হবে না। নতুনরাও যতো দ্রুত পিকনিক মুড আর হানিমুন পিরিয়ড ভুলে কাজে ঝাঁপিয়ে পড়বেন, ততোই দেশের জন্য মঙ্গল।

লেখক : হেড অব নিউজ, এটিএন নিউজ