Skip to main content

দক্ষিণ এশিয়ায় দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থনীতির দেশ বাংলাদেশ, ২০৩৩ সাল নাগাদ বিশ্বের ২৪তম হওয়ার সম্ভাবনা

দেবদুলাল মুন্না : ২০৩৩ সাল নাগাদ দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে বাংলাদেশ অর্থনৈতিকভাবে প্রথমসারির সফল বৃহত্তর দেশ ও  বিশ্বের ২৪তম অর্থনৈতিক দেশে পরিণত হবে। আর একই বছরে যুক্তরাষ্ট্রকে টপকে শীর্ষে চলে আসবে চীন। যুক্তরাজ্য-ভিত্তিক ‘সেন্টার ফর ইকোনমিকস অ্যান্ড বিজনেস রিসার্চ’ কর্তৃক প্রকাশিত ‘ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক লীগ টেবিল ২০১৯’-এ বিষয়টি উল্লেখ করা হয়েছে। ২০১৯ সালের মধ্যে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক সূচকে ৪১তম বৃহত্তর দেশে পরিণত হবে ।

বিশ্বের ১৯৩টি অর্থনীতির অবস্থা বিবেচনা করে এই র‌্যাঙ্কিং নির্ধারণ করা হয়েছে।এতে বলা হয়, ভারত ও মিয়ানমারের সাথে স্থলসীমান্ত রয়েছে দক্ষিণ এশীয় রাষ্ট্র বাংলাদেশের। ১৬ কোটি ৩০ লাখেরও বেশি জনসংখ্যা নিয়ে বাংলাদেশ বিশ্বের ৮ম জনবহুল রাষ্ট্র। গত এক দশক যাবত দেশটির গড় প্রবৃদ্ধি ৬ দশমিক ৩ শতাংশ। চার হাজার ৬শ মার্কিন ডলার মাথাপিছু আয়ের বিশ্বব্যাংকের র‌্যাঙ্কিং অনুসারে এটি নিম্নমধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হয়েছে।

বাংলাদেশের অর্থনীতির প্রবৃদ্ধি দেশটির অভ্যন্তীণ চাহিদাজনিত ব্যয়, সরকারের ব্যয়, রেমিট্যান্স এবং রপ্তানির দ্বারা চালিত হচ্ছে। প্রতিবেদনে বলা হয়, কিছু চ্যালেঞ্জ সত্তে¡ও অর্থনীতির আধুনিকায়নে দেশটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ নিয়েছে। অবকাঠামোগত উন্নয়ন ও সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী পরিচালনার লক্ষ্যে সরকারকে রাজস্ব আদায় বৃদ্ধির প্রতি গুরুত্ব দিতে হবে। মিয়ানমার থেকে বলপূর্বক বাস্তÍুচ্যুত রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে আশ্রয়দানের কারণে যে চাপ সৃষ্টি হয়েছে- তাও উল্লেখ করা হয়।
তৈরিপোশাক বাংলাদেশের প্রধান রপ্তানি পণ্য। ২০১৭ সালের হিসেব অনুযায়ী দেশটির রপ্তানি আয়ের ৮০ শতাংশ তৈরিপোশাক খাত থেকে আসে। দেশটির আয়ের আরেকটি প্রধান উৎস রেমিট্যান্স। এছাড়াও, বাংলাদেশের ৪৩ শতাংশ মানুষ কৃষিখাত সংশ্লিষ্ট কাজে জড়িত।

 

অন্যান্য সংবাদ