Skip to main content

ইলিশের উৎপাদন বাড়াতে মেঘনায় ষষ্ঠ অভয়াশ্রম

Article Highlights

রুপালি ইলিশের উৎপাদন বৃদ্ধি তথা দেশের মৎস্য খাত উন্নয়নে দেশে ষষ্ঠ অভয়াশ্রম গড়ে তোলা হয়েছে। বরিশালের হিজলা ও মেহেন্দিগঞ্জ ঘেঁষা মেঘনা নদীর ৮২ কিলোমিটার জায়গা নিয়ে গড়ে ওঠা এ অভয়াশ্রমের কার্যক্রম আগামী ১ মার্চ থেকে শুরু হবে।

রুপালি ইলিশের উৎপাদন বৃদ্ধি তথা দেশের মৎস্য খাত উন্নয়নে দেশে ষষ্ঠ অভয়াশ্রম গড়ে তোলা হয়েছে। বরিশালের হিজলা ও মেহেন্দিগঞ্জ ঘেঁষা মেঘনা নদীর ৮২ কিলোমিটার জায়গা নিয়ে গড়ে ওঠা এ অভয়াশ্রমের কার্যক্রম আগামী ১ মার্চ থেকে শুরু হবে।

মৎস্য বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, টানা সাড়ে তিন বছর জরিপ করে মেঘনা নদীর ওই স্পটে নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরবর্তীতে গত বছর সেপ্টেম্বরে দুই উপজেলাকে ঘিরে ষষ্ঠ অভয়াশ্রমের গেজেট প্রকাশ করা হয়। অভয়াশ্রমের নিরাপত্তায় ইতোমধ্যে ৪২ জন ফিশ গার্ড নিয়োগ দেয়া হয়েছে। অভয়াশ্রমে আগামী ১ মার্চ থেকে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত মাছ ধরা বন্ধ থাকবে। সূত্রে আরও জানা গেছে, মেঘনাঘেরা বরিশালের হিজলা ও মেহেন্দিগঞ্জ ঘেঁষা ৮২ কিলোমিটার জায়গার মধ্যে একশ’ মিটার জালে প্রতি ঘন্টায় ৫০টিরও বেশি ইলিশের দেখা মেলে। ওই জায়গার পানির গুণগত মানও ভালো। এ কারণেই মৎস্য গবেষণা ইন্সটিটিউট জায়গাটিতে ইলিশের অভয়াশ্রম করার ব্যাপারে মত দেয়। অভয়াশ্রমের কারণে এ অঞ্চলে ইলিশের উৎপাদন বৃদ্ধি পাবে বলে মনে করছেন মৎস্য ও ইলিশ বিশেষজ্ঞরা।

হিজলা ও মেহেন্দিগঞ্জ চারদিকে নদীঘেরা দুটি উপজেলা। এখানকার অধিকাংশ মানুষ মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করে। যখন নদীতে প্রচুর ইলিশ ধরা পরে তখন জেলার মধ্যে সবচেয়ে বেশি রুপালি ইলিশ পান এখানকার জেলেরা। 

জেলা মৎস্য কর্মকর্তা (ইলিশ) বিমল চন্দ্র দাস বলেন, চলতি বছরই দেশের ষষ্ঠ অভয়াশ্রমের যাত্রা শুরু হচ্ছে। ফলে দেশের ইলিশ উৎপাদনের পাশাপাশি অন্য মাছের উৎপাদক কয়েক গুণ বৃদ্ধি পাবে। 

তিনি আরও জানান, ষষ্ঠ অভয়াশ্রম হবে দক্ষিণ-পশ্চিমে বরিশাল সদর উপজেলার জুনাহারের মোড় আড়িয়াল খাঁ, কীর্তনখোলা, কালাবদর নদীর মিলনস্থল। এর দক্ষিণ-পূর্বে মেহেন্দিগঞ্জের জাঙ্গালিয়ার কালাবদর ও তেঁতুলিয়া নদীর মিলনস্থল। উত্তর-পশ্চিমে হিজলার হরিণাথপুর সংলগ্ন আড়িয়াল খাঁ ও মেঘনা নদীর মিলনস্থল। উত্তর-পূর্বে হিজলা গৌরবদীর মেঘনা নদী। তিনি বলেন, আসন্ন প্রজনন মৌসুমে ইলিশের ষষ্ঠ অভয়াশ্রম হিসেবে কার্যকর হবে।

জেলা মৎস্য অফিসার শাজদা রহমান বলেন, ষষ্ঠ অভয়াশ্রমের জন্য এখন মোটিভেশন ওয়ার্ক চলছে। সেখানকার জেলেদের জন্য দুই মাস মাছ ধরা বন্ধ থাকবে। ফলে দেশে ইলিশ উৎপাদন বৃদ্ধি পাবে। এর আগেও দেশে পাঁচটি অভয়াশ্রম থাকলেও ষষ্ঠ অভয়াশ্রমটি কার্যকরী ভূমিকা পালন করবে। 

মৎস্য অধিদফতরের বরিশাল বিভাগীয় উপ-পরিচালক ড. ওয়াহিদুজ্জামান বলেন, হিজলা ও মেহেন্দিগঞ্জের ৮২ কিলোমিটার জায়গা নিয়ে মার্চ ও এপ্রিল মাসে ষষ্ঠ অভয়াশ্রম যাত্রা করবে। এ সময়ে সেখানে মাছ ধরা বন্ধ করা হবে। এজন্য জেলেদের মাঝে প্রচার-প্রচারনা চালানো হচ্ছে। জেলে ও স্থানীয় প্রশাসন-জনপ্রতিনিধিদের সাথে সভা করা হয়েছে। ইতোমধ্যে সেখানকার ৪২ জনকে ফিশ গার্ডের দায়িত্ব প্রদান করা হয়েছে।

বরিশাল জেলা প্রশাসক এসএম অজিয়র রহমান বলেন, রুপালি ইলিশ রক্ষায় আমরা আগে থেকেই কাজ করছি। এখন যেহেতু অভয়াশ্রম হচ্ছে তাই এখন আমাদের আরও কঠোর দৃষ্টি থাকবে। নির্ধারিত সময়ে যেন কেউ মৎস্য শিকার না করতে পারে সে বিষয়ে কাজ করবে স্থানীয় প্রশাসনের পাশাপাশি কোস্টগার্ড ও নৌ-পুলিশের সদস্যরা। ষষ্ঠ অভয়াশ্রমের মাধ্যমে ইলিশ উৎপাদন কয়েক গুণ বাড়বে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

অন্যান্য সংবাদ