Skip to main content

 শ্রমিক নেতাদেরকে হুমকির মাধ্যমে আন্দোলন দমানোর চেষ্টা চলে, বলেছেন বাবুল আক্তার  

বাংলাদেশ গার্মেন্টস অ্যন্ড ইন্ড্রাস্ট্রিয়াল ওয়ারর্কাস ফেডারেশন এর সভাপতি বলেছেন, ২০০৬ সালথেকে শ্রমিক আন্দোলন হলেই দেশি-বিদেশি ষড়যন্ত্রে কথা বলা হয়ে থাকে, সরকার ও মালিক পক্ষের পক্ষ থেকে। কিন্তু আমরা আন্দোলনের সাথে কোনো ষড়ন্ত্রের সম্পৃক্ততা খুঁজে পাই না। আন্দোলন হচ্ছে শ্রমিকদের দাবি আদায়ের একটি প্রক্রিয়া মাত্র। সরকার আর মালিক পক্ষ কখনোই ষড়যন্ত্রের প্রমাণও দিতে পারেন নাই। এগুলো হচ্ছে শ্রমিক নেতাদের চাপে রাখার একটি কৌশল। শুক্রবার বিবিসি নিউজে তিনি আরো বলেন, শ্রমিক নেতাদেরকে  হুমকির  মাধ্যমে আন্দোলন দমানোর চেষ্টা চলে। 

তিনি বলেন, ষড়যন্ত্রের কথা বলে শ্রমিক নেতাদের চাপে রাখার কৌশল অবলম্বন করেন তারা। শ্রমকি  নেতাদেরকে বার বার উক্ত পরিস্থিতি সমাধানের চাপ দেয়া হয়। এমনকি আন্দোলনের সময় শ্রমিক নেতাদের  হুমকি পর্যন্ত দেয়া হয়। বিভিন্ন মামলার ভয়ভীতি দেখানো হয়। এতে আরো পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাহিরে চলে যায়।

তিনি আরো বলেন, আজকের সভায় শ্রমিকদের সমস্যা চিহ্নিত করে জানানো হয়েছে সচিব মহাদয়কে। ইতি পূর্বে ৫ জন মালিক পক্ষের প্রতিনিধি ৫ জন শ্রমিক পক্ষের প্রতিনিধি ও ২ জন সচিবের মতামতের ভিত্তিতে যে গেজেট প্রকাশ করা হয়েছিলো তা পূনরায় মূল্যায়নের ব্যাপারে কথাহয়েছ। সচিব মাহাদয় বলেছেন, একটা হটলাইন চালু করা হবে সেখানে শ্রমিকরা অভিযোগ জানাবেন এবং গেজেট পুনরায় বিবেচনা অতি দ্রুত করা হবে। আমরা সচিব মহাদয়ের সাথে আবারো বসবো। আমাদের পক্ষথেকে বলাহয়েছে, শ্রমিকরা কাজে ফিরে যাবে।

অন্যান্য সংবাদ